Ad
রাজ্য

প্রচারের ভিড় বাড়ানোর প্রতিযোগিতা চলছে ভোটমুখী রাজ্যগুলিতে, বিশেষ নির্দেশিকা জারি করল নির্বাচন কমিশন

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা তুড়িতে উড়িয়ে প্রচারের ভিড় বাড়ানোর প্রতিযোগিতা চলছে ভোটমুখী রাজ্যগুলিতে। করোনা সংক্রমণ যাতে ভয়ঙ্কর জায়গায় পৌঁছে না যায় সেকারণে নতুন নির্দেশিকা জারি করেছে নির্বাচন কমিশন। নির্দেশিকা জারি করে জানিয়েছে প্রতি বুথে থার্মাল স্ক্রিনিং করতে হবে ভোটারদের। কোভিড বিধি না মানলে ভোট দান করতে পারবেন না ভোটাররা কড়া নির্দেশিকা জারি করল নির্বাচন কমিশন।

করোনা বিধি না মানলে ভোট নয়

Ad

করোনা ভাইরাসের সেকেন্ড ওয়েভ কড়া নাড়ছে দরজায়।

তারমধ্যেই ৫ রাজ্যে ভোট। প্রচার চলছে জোর কদমে। এই করোনা সংক্রমণ যাতে ভয়ঙ্কর জায়গায় ফের পৌঁছে না যায় সেকারণে ভোটারদের জন্য বিশেষ করোনা বিধি জারি করল নির্বাচন কমিশন। করোনা বিধি না মানলে ভোটাররা ভোট দান করতে পারবেন না বলে কড়া নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। প্রতিবুথে ভোটারদের থার্মাল স্ক্রিনিং বাধ্যতামূলক করা হয়েেছ। এমনকী মাস্ক এবং স্যানিটাইজার সঙ্গে রাখতে হবে ভোটার এবং ভোটকর্মী উভয়কেই। একই সঙ্গে করোনা সংক্রমণ রুখতে বুথে বুথে হবে কড়া নজরদারি।

সেকেন্ড ওয়েভের দোরগোড়ায়

সেকেন্ড ওয়েভের দোর গোড়ায় দাঁড়িয়ে রয়েছে গোটা দেশ। ১০ রাজ্যে করোনা সংক্রমণ ফের ভয়াবহ আকার নিয়েছে। হু হু করে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। শীর্ষে সেই মহারাষ্ট্র। বঙ্গেও সংক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে। তারমধ্যেই সংক্রমণের আশঙ্কা তুড়িতে উড়িয়ে হুড়োহুড়ি করে চলছে প্রচার। জমায়েতে একে অপরকে টেক্কা দিতে প্রতিযোগিতা শুরু করেছে রাজনৈতিক দলগুলি। রাজনৈতিক সভা থেকে রোড শো সবেতেই ভিড় চোখে পড়ার মতো।

ভ্যাকসিন নিয়ে নির্দেশিকা

দেশের করোনা পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর জায়গায় যাচ্ছে আঁচ করেই কেন্দ্র ভ্যাকসিন নিয়ে বিশেষ নির্দেশিকা জারি করেছে। গত কয়েক মাসে করোনা সংক্রমণ রুখতে ৪৫ বছরের উর্ধ্বে যাঁরা রয়েছেন তাঁদেরও এবার টিকাকরণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মোদী সরকার। কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় আজই পাস হয়েছে এই প্রস্তাব। ১ এপ্রিল থেকেই গোটা দেশে ৪৫ বছরের উর্ধ্বে যাঁরা রয়েছেন তাঁদের করোনা টিকা দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক

করোনা সংক্রমণ যখন বাড়তে শুরু করেছে তখন ৫ রাজ্যের ভোট আসন্ন। ইতিমধ্যেই পরিস্থিতি নিয়ে রাজ্যের জেলা শাসক ও জেলা পুলিশ সুপারদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন মুখ্যসচিব।করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে কীভাবে ভোট করানো যায় তা নিয়ে বিশেষ পর্যালোচনা হয়েছে। সেই রিপোর্ট পাওয়ার পরেই এই নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন