বাংলায় CAA কার্যকর হবেই, রাজ্য সরকার যতই বিরোধিতা করুক, হুঁশিয়ারি কৈলাসের

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : সিএএ ইস্যুতে ফের সুর চড়ালেন কৈলাস বিজয়বর্গীয় এরাজ্যে দ্রুত কার্যকর হবে সিএএ, দাবি তাঁরঠাকুরনগরে দাঁড়িয়ে এমনটাই বললেন তিনি
সিএএ ইস্যুতে ফের সুর চড়ালেন বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়। এবার তিনি বললেন, রাজ্য বিরোধিতা করলেও কেন্দ্রীয় সরকার সিএএ পশ্চিমবঙ্গে লাগু করবে। সেইসঙ্গে তিনি দেখা করলেন সাংসদ শান্তনু ঠাকুরের সঙ্গে।

সিএএ ইস্যুতে কৈলাস

শনিবার ঠাকুরনগরে যান বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়। সেখানেই তিনি বলেন, এ রাজ্যে অতি দ্রুত সিএএ চালু হবে। রাজ্য সরকার যদি বিরোধিতা করে, তাহলেও কেন্দ্রীয় সরকার সিএএ এরাজ্যে কার্যকর করার লক্ষ্যে এগিয়ে যাবে। ঠাকুরনগরে দাঁড়িয়ে কৈলাসের এই মন্তব্যে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ।

শনিবার তিনি এলাকায় বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুরের সঙ্গে দেখা করেন। বিগত বেশ কয়েকদিন ধরে সিএএ দ্রুত চালু করার দাবিতে সুর চড়াচ্ছিলেন এই বিজেপি সাংসদ। আসন্ন বিধানসভা ভোটে মতুয়া ভোটব্যাঙ্কে নজর রয়েছে সব রাজনৈতিক দলের। এবার তাই মতুয়াদের গড়ে গিয়ে সিএএ নিয়ে আশ্বস্ত করলেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

এদিন কৈলাস বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার তৈরি হচ্ছে। যত বাধাই আসুক এরাজ্যে সিএএ চালু হবে। পাকিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে ধার্মিক ভাবে যারা প্রতারিত হয়ে এরাজ্যে এসেছেন শরণার্থী হিসাবে, সকলকে নাগরিকত্ব প্রদান করা হবে। এটা আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-তৃণমূল কী বলল কিংবা সিপিএম কী বলল, এতে আমাদের কোনও মাথাব্যাথা নেই।

নজরে মতুয়া ভোট

সিএএ ইস্যুতে আগেও কেন্দ্রের সঙ্গে বিরোধে জড়িয়েছে রাজ্যে শাসকদল তৃণমূল। সম্প্রতি সিএএ দ্রুত লাগু করার জন্য সুর চড়ান বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুর। বঙ্গ বিধানসভা ভোটে মতুয়াদের বিরাট প্রভাব রয়েছে। উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, নদিয়া জেলাতে বেশ কিছু বিধানসভা মতুয়া নির্ভর।

ফলে সেই বিধানসভাগুলিকে টার্গেট করে সিএএ ইস্যুতে প্রচার চালাতে পারে গেরুয়া শিবির। অন্যদিকে, মতুয়াদের নিয়ে সম্প্রতি আলাদা বোর্ড গঠন করেছে রাজ্যের শাসকদল। রাজনৈতিক মহলের ধারনা মতুয়াদের ঘিরে একুশের বিধানসভা ভোটে সিএএ রাজ্যের অন্যতম নির্বাচনী ইস্যু হতে চলেছে। যদিও কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে সিএএ ইস্যুতে এখনও স্পষ্ট কিছু বলা হয়নি।