Ad
দুর্গাপুজো ২০২১রাজ্য

সপ্তমীতেই কাটবে সংসারে থাকা কুনজর ! এই সামান্য কাজ গুলি অবশ্যই করুন

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : নবরাত্রির সপ্তমী তিথিতে অনেকেই বাড়িতে দেবী কালরাত্রির আরাধনা করেন। দেবী কালরাত্রিকে কেন্দ্র করে রয়েছে নানান প্রচলিত বিশ্বাস।

সপ্তমীর দিন বিশেষ করে বহু নিয়ম পালন করা হয় ভাগ্যের দোষ কাটাতে। সাংসারিক জীবন থেকে অশান্তি এবং নানান বিবাদ দূর করতে সপ্তমীর দিনটিকে উত্‍কৃষ্ট মনে করেন অনেক মানুষ।

Ad

সংসারে থাকা কুনজর বা অশুভ শক্তির খারাপ প্রভাব এড়াতে পালন করুন সামান্য কয়েকটি নিয়ম।

• দেবী কালরাত্রির উদ্দেশ্যে নিবেদন করুন গুড় কিংবা গুড়ের তৈরি সন্দেশ। তারপর সেই প্রসাদ বিতরণ করুন সর্বসাধারণের মধ্যে। কথিত আছে এর ফলে –
• ✓মানুষ তথা সংসারে থাকা খারাপ শক্তির প্রভাব কেটে যায়।
• ✓অনেক ব্যক্তির জীবনে নানান সময় বিপদ ঘটার আশঙ্কা থাকে। সপ্তমী তিথিতে এই নিয়ম পালন করলে সেই আশঙ্কা কেটে যায়।
• ✓খারাপ সময় অনেকের জীবনে মাঝে মাঝে বিড়ম্বনার সৃষ্টি করলে, তার সম্ভাবনা দূর হয়।
• •দেবীর আরাধনার পর সামর্থ্যমতো চেষ্টা করুন ব্রাহ্মন ভোজন করানোর। পাশাপাশি দুঃস্থ ব্যক্তিদের দান করুন খাদ্য এবং বস্ত্র। এতে সংসারের মঙ্গল হয়।
•মণ্ডপে বা বাড়িতে যেখানে মা দুর্গার পুজো করা হয়, সেখান থেকে মাটি এনে বাড়ির উত্তর-পূর্ব কোণে পুঁতলে বাস্তুদোষ কেটে যায়।
••পুজোর নৈবেদ্য দেওয়া শাড়ি পুরোহিতের কাছ থেকে চেয়ে নিতে পারেন বা মূল্য দিয়ে কিনে নিতে পারেন। মায়ের উদ্দেশ্যে অর্পণ করা শাড়ি বাড়িতে থাকলে গৃহস্থের কল্যাণ হয়।
•সকালে স্নান সেরে শুদ্ধ বস্ত্রে মাকে প্রনাম করুন এবং নীল রঙের ফুল অর্পণ করুন। দেবী কালরাত্রির প্রিয় ফুল হলো নীল রঙের। এছাড়াও এই ফুলে আরাধনা করলে শনিদেবের শুভ ফল প্রাপ্ত হয় এবং মানব জীবনের অশুভ শক্তির বিনাশ হয়।

আরও পড়ুন