অন্য জনের সাথে সম্পর্ক, রাগে প্রেমিককে ব্লেড দিয়ে হানা তরুণীর

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : বেশ কিছু দিন ধরে পাত্তা দিচ্ছিলেন না প্রেমিক। রাগে প্রেমিকা এবং তাঁর দাদা মিলে প্রকাশ্য রাস্তায় ব্লেড চালালেন প্রেমিকের উপর। মঙ্গলবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে হাওড়ার বাঁকড়া এলাকায়। এই ঘটনায় প্রেমিকার দাদাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বাঁকড়ার পেয়াদাপাড়ায় পোশাকের ব্যবসা করেন শেখ আফসার আলি। ২১ বছরের ওই যুবকের সঙ্গে পাশের মণ্ডলপাড়ার বাসিন্দা নাজ খাতুনের এক বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। তাঁদের দু’জনকে প্রায়শই রাস্তার ধারে দাঁড়িয়ে গল্পগুজব করতে দেখা যেত।

পুলিশ সূত্রে খবর, মঙ্গলবার রাতে আফসার যখন স্থানীয় ক্লাবে বন্ধুদের সঙ্গে গল্প করছিলেন, তখন তাঁকে বটতলা এলাকায় ফোন করে ডাকেন নাজ। সেখানেই তাঁদের মধ্যে বচসা শুরু হয়। তখন নাজ তাঁর দাদাকে ফোন করে ডাকেন। অভিযোগ, এর পর হঠাৎই আফসারকে ব্লেড দিয়ে আক্রমণ করেন নাজ। তাঁর দাদা এসেও আসরফের উপর ব্লেড দিয়ে আঘাত করেন বলে অভিযোগ। ওই এলাকায় থাকা সিসিটিভি ক্যামেরায় ধরা পড়েছে গোটা ঘটনা। ব্লেডের আঘাতে আফসারের বুক এবং হাত থেকে রক্ত ঝরতে থাকে। তখন স্থানীয় বাসিন্দারা তাঁকে একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে নিয়ে যায়।

এক বছরের সম্পর্ক, কিন্তু এখন তা ভেঙে দিয়েছেন প্রেমিক। আর সেই রাগেই রাস্তায় প্রেমিককে আক্রমণ করে বসলো এক তরুণী। শুধু তাই নয় প্রেমিকের বুকে ধারালো ব্লেড চালিয়ে দিলেন ওই কন্যে। এই ঘটনাকে ঘিরে এখন উত্তেজনা ছড়িয়েছে হাওড়ার বাঁকড়া এলাকায়।

জানা যাচ্ছে বাঁকড়ার পেয়াদাপাড়ায় বাসিন্দা শেখ আফসার আলীর সঙ্গে প্রণেয়র সম্পর্ক ছিল পাশের মণ্ডলপাড়া বাসিন্দা নাজ খাতুনের। ২১ বছরের আফসার কাপড়ের ব্যবসায়ী। গত এক বছর ধরে ১৯ বছরের নাজকে এলাকায় প্রায়ই রাস্তার ধারে আড্ডা মারতে দেখা যেত। কিন্তু হঠাৎ করেই সেই সম্পর্ক ছেড়ে বেরিয়ে আসেন প্রেমিক। আর তাই ঘিরেই ঝামেলার সূত্রপাত।

মঙ্গলবার রাতে শেখ আশরাফ আলী জিমে গিয়েছিল। জানা যাচ্ছে সেই সময় তাকে পোন করে ডাকে নাজ খাতুন। আশরাফ আসতেই তার সঙ্গে নাজের বচসা বাধে। কিছুক্ষণের মধ্যেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। তখন নাজ তার দাদাকে ফোন করে ডাকে। এরপর হঠাৎই নাজ আফসারকে ব্লেড দিয়ে আক্রমণ করে। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায় নাজের দাদাও একইভাবে আশরাফকে ব্লেড দিয়ে আঘাত করছে। গোটা ঘটনাটাই সিসিটিভি ক্যামেরায় ধরা পড়ে। আফসারের বুক এবং ডান হাত থেকে রক্ত ঝরতে থাকে। স্থানীয় বাসিন্দারা সঙ্গে সঙ্গে তাকে একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে নিয়ে যায়। নার্সিংহোম সূত্রে খবর তার বুকে পাঁচটি এবং হাতে দশটি সেলাই হয়েছে। সেখানে চিকিৎসার পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

এই ঘটনায় আক্রান্ত যুবক শেখ আফসার আলী ইতিমধ্যে বাঁকড়া পুলিশ ফাঁড়িতে লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করেছে। পুলিশ নাজের দাদাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান ইদানিং আফসার নাজকে পাত্তা দিচ্ছিল না। সে সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে আসতে চাইছিল। এতেই চটে যায় মেয়েটি। তাই প্রতিশোধ নেওয়ার জন্যে নাজ তার প্রেমিককে আক্রমণ করে।