ফের একবার প্রধানমন্ত্রী ও শুভেন্দু অধিকারী সাক্ষাৎ, বিশেষ দায়িত্ব বঙ্গ বিজেপিতে

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : মাত্র কয়েকদিন আগের ঘটনা। ছবিটা এখনও সবার মনেই অত্যন্ত টাটকা। নেতাজীর জন্ম জয়ন্তী অনুষ্ঠানের মঞ্চ। মঞ্চের প্রধান আকর্ষণ স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। অন্যতম আকর্ষণের কেন্দ্র বিন্দু রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মঞ্চ জুড়ে রয়েছেন আরও অগনিত রথী মহারথীরা। কিন্তু সেই সবার মধ্যেও একেবারে আলাদা করে একটা ছবি সবার মন কেড়েছিল।

মঞ্চে এগিয়ে যেতে গিয়ে মুহূর্তের জন্য থমকে দাঁড়িয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। আর তারপর আলতো করে কাঁধে হাত রেখেছিলেন এই মুহূর্তে বাংলা জুড়ে সবথেকে বেশি আলোচিত ব্যক্তিটির কাঁধে।

এই মুহূর্তে বাংলার নতুন বিপ্লবী হিসেবে পরিচিতি পাওয়া শুভেন্দু অধিকারীর প্রতি এরপর সস্নেহে প্রধানমন্ত্রী মোদীর ছোট্ট মন্তব্য, ” শুভেন্দু, তুম আচ্ছা কাম কার রহে হো…” । খুবই সল্প মুহূর্ত। অত্যন্ত ছোট্ট শব্দবন্ধ। কিন্তু তাৎপর্য বিশাল। অন্তত তেমনটাই মনে করছেন রাজ্যের রাজনৈতিক বোদ্ধারা।এরপর আবার ফের একবার প্রধানমন্ত্রী মোদী ও শুভেন্দু অধিকারী সাক্ষাৎ। এবার ঘটনাস্থল রাজ্যের অধিকারী গড় হিসেবে পরিচিত পূর্ব মেদিনীপুরের বন্দর শহর হলদিয়া।

আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি একটি সরকারি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে হলদিয়ায় আসছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর সব কিছু ঠিক থাকলে ওই দিন হলদিয়ায় খুব স্বল্প সময়ের জন্য হলেও মোদী শুভেন্দু বৈঠকে বসার সম্ভাবনা রয়েছে বলে সূত্রের খবর।শেষ পর্যন্ত যদি ওই বৈঠক বাস্তবায়িত হয়, তাহলে সেটা যে বিশেষ গুরুত্ব বহন করবে, সেটা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

একইসঙ্গে বিজেপি পরিবারে সদ্য যোগদেওয়া তৃনমূলের বিপ্লবী শুভেন্দু অধিকারীর স্থান ও মান টাও অনেকটাই পরিষ্কার হয়ে যাবে রাজ্যবাসীর সামনে। যা ইতিমধ্যেই কিছুটা পরিষ্কার ভিক্টোরিয়ার অনুষ্ঠানের পর।এখন তাই রাজ্যের রাজনৈতিক মহল প্রায় শকুনের দৃষ্টিতে তাকিয়ে আগামী ৭ ফেব্রুয়ারির দিকে।

শেষ পর্যন্ত কী হতে চলেছে মোদী শুভেন্দু বৈঠকে ? তবে কি রাজ্য বিজেপিতে নতুন কোনও দায়িত্বভার চাপতে চলেছে শুভেন্দু অধিকারীর কাঁধে ? তবে কি এই রাজ্যের বিশেষ কোনো গুরু দায়িত্বের জন্য শেষ পর্যন্ত বিবেকানন্দের আদর্শে অনুপ্রাণিত এই বিপ্লবী রাজনীতিককেই বেছে নিতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ? ঠিক যেমনটা তিনি করেছিলেন ত্রিপুরায় !

নির্বাচনের ঠিক আগে আগেই বিশেষ দায়িত্বভার সঁপে দিয়েছিলেন সেখানকার যুব এবং উদ্যমী নেতা বিপ্লব দেবকে বেছে নিয়ে। এই প্রশ্নই এখন ঘুরপাক খেতে শুরু করেছে এই রাজ্যের বিজেপি নেতা কর্মী সমর্থকদের মনে। একই সঙ্গে এই প্রশ্নে ঔৎসুক্যভরা দৃষ্টি নিক্ষেপ করে বসে রয়েছে রাজ্যের শাসক থেকে শুরু করে তামাম বিরোধী রাজনৈতিক দল।