“এনআরসি আর নাগরিকত্ব সংশোধন বিল – দুটোই কয়েনের এপিঠ-ওপিঠ, আমরা থাকতে কারও ক্ষমতা নেই কাউকে ওরা দেশ ছাড়া করবে।” : মমতা

খড়গপুর: খড়গপুরের সরকারি সভা থেকে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে চড়া সুরে আক্রমণ শানালেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোজাসুজি বললেন, “এনআরসি আর নাগরিকত্ব সংশোধন বিল – দুটোই কয়েনের এপিঠ-ওপিঠ। কিন্তু আপনারা ভয় পাবেন না। আমরা থাকতে কারও ক্ষমতা নেই কাউকে ওরা দেশ ছাড়া করবে।”

এদিন মমতা বলেন, “খড়গপুরের মানুষ আমাদের সমর্থন করেছেন। আমরাও এবার এখানে যা যা করার করব।” তাঁর কথায়, “আমায় প্রদীপ বলেছে, এখানে আইসিইউ দরকার। আমি আজ এখানে কথা দিয়ে গেলাম ২০২০ সালের মার্চের মধ্যে ১০টি বেডের আইসিইউ করে দেওয়া হবে।” পাশাপাশি স্থানীয় একটি স্টেডিয়ামের গ্যালারি নির্মাণের জন্য ৫ কোটি টাকা দেওয়ার কথাও ঘোষণা করেন তিনি।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “আমাদের ভোটার কার্ড আছে, আধার কার্ড আছে, রেশন কার্ড আছে। তাহলে আবার কিসের নাগরিকত্বের প্রমাণ দিতে হবে? ওরা মানুষের মধ্যে ভাগাভাগি করতে করতে চাইছে। আমরা বলছি কোনও ডিভাইড অ্যান্ড রুল চলবে না। বাংলায় আমরা এসব করতে দেব না। মানুষকে আগে রেশন দিন, তারপর ভাষণ দেবেন।”

এমনিতে খড়গপুর শহরকে অনেকেই ‘মিনি ভারতবর্ষ’ বলেন। দেশের প্রায় সব অংশের মানুষেরই বাস এখানে। এদিন মমতা অসমের এনআরসির কথা টেনে বলেন, “ওরা অসমে কাউকে বাদ দিচ্ছে না। বিহারি, গোর্খা, বাঙালি কাউকে বাদ দিচ্ছে না।”

এমনিতে খড়গপুর শহরকে অনেকেই ‘মিনি ভারতবর্ষ’ বলেন। দেশের প্রায় সব অংশের মানুষেরই বাস এখানে। এদিন মমতা অসমের এনআরসির কথা টেনে বলেন, “ওরা অসমে কাউকে বাদ দিচ্ছে না। বিহারি, গোর্খা, বাঙালি কাউকে বাদ দিচ্ছে না।”

দলীয় সূত্রে খবর, এদিন খড়গপুর সভা থেকে একাধিক প্রকল্পের শিলান্যাস করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রশাসন সুত্রে খবর, খড়গপুরে এসে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার উন্নয়নে প্রায় ৩৬টি প্রকল্পের উদ্বোধন করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সেইসঙ্গে ২৯টি নতুন প্রকল্পের শিলান্যাসও করেন তিনি৷ মুখ্যমন্ত্রীর হাত ধরে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার জন্য ৩২৫ কোটি টাকার প্রকল্পের উদ্বোধন হতে চলেছে বলে জানা গিয়েছ৷ পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী যে ২৯টি প্রকল্পের শিলান্যাস করবেন, তার জন্য খরচ ধরা হয়েছে ২৩৫ কোটি টাকার৷