Ad
রাজ্য

তৃণমূলে থাকা অসম্ভব, সৌগত রায়কে জানিয়ে দিল শুভেন্দু

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

ইউবিজি নিউজ ব্যুরো : রাত কাটতেই ভোল বদলে তৃণমূল ছাড়ার ইঙ্গিত শুভেন্দু অধিকারীর। তৃণমূলের শীর্ষ নেতাদের ডাকা বৈঠক নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করলেন শুভেন্দুবাবু। সৌগত রায়কে মোবাইলে এসএমএস করে শুভেন্দুবাবু বলেন, ‘আমি আপনাকে যথেষ্ট শ্রদ্ধা করি। কিন্তু গতকাল বৈঠকে আমাকে অনৈতিকভাবে ডাকা হয়েছিল। আমি ভবিষ্যতে আপনাদের সঙ্গে কাজ করতে চাই না। সুত্রের থেকে এমন দাবি করা হয়েছে।সুত্রের আরো দাবি, এই ম্যাসেজে বৈঠকে ডাকার জন্যে নিজের অসন্তোষের কথা জানিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী।

সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় ও সৌগত রায়ের উপস্থিতিতে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রশান্তের কিশোরের সঙ্গে ঘণ্টা দুয়েকের বৈঠক শুভেন্দু অধিকারীর। বৈঠক শেষে সৌগত রায় জানিয়ে দেন, শুভেন্দু অন্য কোনও দলে যাচ্ছেন না, একসঙ্গে লড়াই করবেন। কিন্তু এই বৈঠক নিয়ে শুভেন্দু নিজে মুখ খোলেন নি। যা নিয়ে জল্পনা চলছিল। যদিও সৌগত রায়ের দাবি ছিল, দু’একদিনের মধ্যে সাংবাদিক সম্মেলনে করে সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেবেন শুভেন্দু। কিন্তু, তা আর হল না, বরং জল্পনাই সত্যি হল বলা যায়।

Ad

শুভেন্দুর ঘনিষ্ঠমহল সূত্রে খবর, বৈঠকে যে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রশান্ত কিশোরও থাকবেন, তা জানতেন না শুভেন্দু অধিকারী। কিছুক্ষণ পর যখন দু’জনে বৈঠকে ঢোকেন, তখন চুপ করে যান শুভেন্দু। এরপর সৌগত রায় ফোন করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। ফোনে দলনেত্রীর সঙ্গে শুভেন্দুর সৌজন্যমূলক কথাবার্তা হয়। এর বেশি বৈঠকে আর একটি কথাও বলেননি নন্দীগ্রামের বিধায়ক। অথচ সাংবাদমাধ্যমে প্রচার করা হচ্ছে যে, দলের সঙ্গে তাঁর সমস্ত সমস্যা বা ভুল বোঝাবুঝি মিটে গিয়েছে।আর এতেই তিনি যে ‘অসন্তুষ্ট’, বুধবার ব্যক্তিগতভাবে তা সৌগত রায়কে শুভেন্দু জানিয়ে দিয়েছেন বলে খবর।

আরও পড়ুন