ধূপগুড়িতে ভয়াবহ পথ দুর্ঘটনা, ঘটনাস্থল পরিদর্শনে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ

ধুপগুড়ি, ২০ জানুয়ারিঃ ধূপগুড়ির দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গেলেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। বুধবার সকালে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান মন্ত্রী। এদিন তিনি মৃত ও আহতদের পরিবারের পাশে থাকার বার্তা দেন।

এই দুর্ঘটনায় ইতিমধ্যেই টুইট করে মৃতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই সঙ্গে মৃতদের পরিবারকে আড়াই লক্ষ ও আহতদের ৫০ হাজার টাকা করে আর্থিক সাহায্য দেবার কথা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিন রবীন্দ্রনাথ ঘোষ বলেন, “প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে যে লরিটি খুব খারাপ অবস্থায় ছিল। দুর্ঘটনাগ্রস্ত লরিটিকে দেখে মনে হচ্ছে সেটি ওভারলোডেডও ছিল। যার ফলেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। সমগ্র বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।”

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার রাতে ধূপগুড়ির ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কে ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে। যার জেরে এখন পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের। এরমধ্যে তিনজন শিশুও রয়েছে। জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার রাত ৯ টা নাগাদ তিনটি ছোট গাড়ি করে ধূপগুড়ির ময়নাতলি এলাকায় বৌভাতের অনুষ্ঠানে যাচ্ছিলেন কনেপক্ষের আত্মীয়রা। সে সময়ই দুর্ঘটনার কবলে পড়ে ওই গাড়ি। জলঢাকা সেতুর কাছে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে পাথর বোঝাই বোঝাই একটি লরি। সেটির পিছনে ধাক্কা মারে কনেযাত্রীর একটি গাড়ি।

এরপরেই পাথর বোঝাই ডাম্পার নিয়ন্ত্রণ হারায়। সেটি উল্টে যেতেই পিছনে থাকা দুটি যাত্রী বোঝাই গাড়ি পরপর ডাম্পারের উপর এসে পড়ে। সেই দুটি গাড়ির উপর হুড়মুড়িয়ে পাথরের স্তূপ আছড়ে পড়ে। যাত্রীদের চিৎকারে স্থানীয় বাসিন্দারা ছুটে আসেন।

দুর্ঘটনার খবর পেয়েই সেখানে হাজির হন ধূপগুড়ি থানার আইসি। ক্রেন দিয়ে চলে উদ্ধারকাজ। পাথরের তলা থেকে উদ্ধার করা হয় মৃত ও আহতদের। আহতদের প্রথমে ধূপগুড়ি হাসপাতালে এবং পরে জলপাইগুড়ি হাসপাতালে পাঠানো হয়।