পিএম কিসান সম্মাননিধি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদীকে চাপে ফেলে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়?

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : ইউবিজি নিউজ ডেস্ক: ভোটের প্রচারে এসে পিএম কিসান সম্মাননিধি নিয়ে বড়োসড়ো প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তিনি বলেছিলেন, রাজ্যে নতুন সরকার এসেই এই প্রকল্পে কৃষকদের বকেয়া-সহ ১৮ হাজার টাকা মিটিয়ে দেওয়া হবে। বৃহস্পতিবার নবান্নের সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানালেন, প্রায় ১৫ লক্ষ কৃষকের নামের তালিকা কেন্দ্রকে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

মমতা এ দিন বলেন, “আপনারা জানেন, নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, সব অফিসাররা রেডি থাকো, ভোটের পরেই কিসান কী একটা যোজনা আছে, তাতে ১৮ হাজার টাকা করে কৃষকদের দেওয়া হবে। সেই চিঠি আজকে আমি করে দিয়েছি। কারণ, আমরা ইতিমধ্যেই যত কৃষকের নাম পোর্টালে রয়েছে, সেই নামগুলো তুলে দিয়েছি। পাঁচ মাস ধরে কাজটা আমরা আগেই করে দিয়েছি। সুতরাং আমরা আশা করব, যে টাকাটা দ্রুত দেওয়া হবে”।

মমতা বলেন, “পিএম কিসান যোজনায় টাকাটা দ্রুত দেওয়া হোক কৃষকদের। ইতিমধ্যেই ১৪.৯১ লক্ষ কৃষকদের নাম যাচাই করে আমরা ইতিমধ্যেই তালিকা পাঠিয়ে দিয়েছি। সুতরাং তাঁদের বলব, দ্রুত টাকাটা পাঠান। কারণ, আমরা ইতিমধ্যেই ২০১৯ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩,৪৫৪ কোটি টাকা রাজ্য সরকারের কৃষকবন্ধু প্রকল্পে বিতরণ করেছি। মৃত্যুকালীন সুবিধা প্রকল্পেও ২০,৬৭৮ জন কৃষকের পরিবার আর্থিক সহায়তা পেয়েছেন। এই খাতে ৪১৩.৫৬ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে”।

তিনি আরও বলেন, “চলতি আর্থিক বছরে প্রতি কৃষককে ৬ হাজার টাকা প্রতি একর জমির জন্য কৃষকদের দেওয়া হয়েছে। আর আমারা বলেছি, ৬ হাজার টাকার জায়গায় ১০ হাজার দেব, সেটা কোভিড পরিস্থিতি একটু নিয়ন্ত্রণে এলেই শুরু করব”।

রাজ্যে ভোট প্রচারে এসে প্রধানমন্ত্রী একাধিক বার কিসান সম্মান নিধি প্রকল্পের কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, “বকেয়া ১৮ হাজার টাকা কৃষকদের অ্যাকাউন্টে পাঠানো হবে, দুর্গাপুজোর আগে হবে, এখন থেকে কৃষকদের নামের তালিকা শুরু করে দিন, বাংলায় নতুন মুখ্যমন্ত্রীকে বলব প্রথম মন্ত্রিসভার বৈঠকেই সিদ্ধান্ত নিন”।

পাশাপাশি তিনি অভিযোগ করেছিলেন, রাজ্য সরকারের রাজনৈতিক উদ্দেশের জন্যই বাংলার কৃষকরা এই কেন্দ্রীয় প্রকল্প থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। তবে এ বার সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে রাজ্য। এখন দেখার কেন্দ্র কী করে!