Ad
রাজ্য

শুরু হচ্ছে প্রাথমিকে নিয়োগের কাউন্সেলিং, বিজ্ঞপ্তি জারি WBBPE-র, জানুন বিস্তারিত 

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা মত প্রাথমিকে ১০ হাজার ৫০০ শিক্ষক নিয়োগের কাউন্সিলিংয়ের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হল। পূর্বের ঘোষণা মত প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নির্ঘণ্ট প্রকাশ করে। পর্ষদের সভাপতি মানিক ভট্টাচার্য ঠিক এক সপ্তাহ আগে নির্ঘণ্ট প্রকাশের কথা জানিয়েছিলেন। এদিন সেই মোতাবেক নির্ঘণ্ট প্রক্রিয়াকরণের বিজ্ঞপ্তি সরকারিভাবে পর্ষদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ হল।

মেধা তালিকায় ঠাঁই পাওয়া অবশিষ্ট প্রার্থীদের থেকে নিয়োগের কাউন্সেলিং। অনলাইন কাউন্সেলিংয়ের জন্য বিজ্ঞপ্তি জারি করল ওয়েস্ট বেঙ্গল বোর্ড অফ প্রাইমারি এডুকেশন। জেলাস্তরে ভ্যাকেন্সির ভিত্তিতে এই কাউন্সেলিং।

Ad

ওয়েস্ট বেঙ্গল প্রাইমারি স্কুল টিচারস রিক্রুটমেন্ট রুলস-২০১৬ অনুযায়ী চলতি বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারি মেধাতালিকা প্রকাশ করে পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ড। মার্চের ৪ তারিখে কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের নির্দেশিকা মেনে তালিকা প্রকাশ করা হয় বলে বোর্ডের তরফে জানানো হয়েছে।

জেলাস্তরে শূন্যপদের ভিত্তিতে মেধাতালিকা তৈরি করা হয়। সংশ্লিষ্ট জেলা কর্তৃপক্ষের তরফে ইতিমধ্যে তালিকাভুক্তদের নিয়োগপত্রও ইস্যু করা হয়েছে।

মেধাতালিকায় এখনও কিছু প্রার্থী রয়েছেন। যাঁদের নিজস্ব জেলায় ভ্যাকেন্সি না থাকায় তালিকাভুক্ত করা যায়নি। এই অবশিষ্ট প্রার্থীদেরই রাজ্যস্তরীয় অনলাইন কাউন্সেলিং হবে ১২ জুলাই থেকে। চলবে ১৯ জুলাই পর্যন্ত। ১২ জুলাই-ই লাইভ হবে পোর্টালের।

এদিকে গত ২১ জুন উচ্চ প্রাথমিকে ইন্টারভিউয়ের তালিকা প্রকাশ করেছিল রাজ্য। কর্মশিক্ষা ও শারীরশিক্ষা ছাড়া ২০১৬-র উচ্চ প্রাথমিকের শূন্যপদে ১৪ হাজার ৩৩৯ শিক্ষক নিয়োগের জন্য ইন্টারভিউয়ের তালিকা প্রকাশিত হয়। নিয়ম মেনে তালিকা প্রকাশ করা হয়নি বলে অভিযোগ তুলে মামলা দায়ের করা হয়। তালিকায় দুর্নীতির অভিযোগ, এসএসসি-র নিয়মভঙ্গের অভিযোগ তোলেন চাকরিপ্রার্থীরা।

তালিকা তৈরিতে স্বজনপোষণের অভিযোগও তোলা হয়। শুধু তাই নয়, কম নম্বর পেয়েও তালিকায় জায়গা দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ তাঁদের। গত ৩০ জুন সেই মামলার শুনানিতে উচ্চ প্রাথমিকে প্রায় সাড়ে ১৪ হাজার শূন্যপদে নিয়োগে অন্তর্বর্তীকালীন স্থগিতাদেশ জারি করেছিল হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিত্‍ গঙ্গোপাধ্যায়ের বেঞ্চ।

গত শুক্রবার এই মামলার শুনানি চলাকালীন উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগের উপর অন্তর্বর্তী স্থগিতাদেশ বাড়ানো হয়। সাতদিনের মধ্যে প্রাপ্ত নম্বর সহ তথ্য দিয়ে ইন্টারভিউয়ের তালিকা প্রকাশ করতে বলা হয়। যাঁদের আবেদন খারিজ হয়েছে, তাঁদের নম্বর খারিজের কারণ দেখাতে হবে। এমনই নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। আগামী শুক্রবার হাইকোর্টে উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগ নিয়ে ফের শুনানি রয়েছে।

আরও পড়ুন