একুশের বিধানসভা ভোটের আগে মাস্টারস্ট্রোক মমতার, নন্দীগ্রাম থেকে প্রার্থী হচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : জানিয়ে রাখি, দীর্ঘ পাঁচ বছর পর আজ নন্দীগ্রামে মুখ্যমন্ত্রী। ২০১৬ এর জানুয়ারি মাসে শেষবার গিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নন্দীগ্রাম থেকে আজ বড় ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানিয়ে দেন যে, নন্দীগ্রাম থেকে একুশে তৃণমূলের প্রার্থী তিনিই হবেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই ঘোষণা শুভেন্দু অধিকারীর গড়ে ভাঙন ধরানোর জন্যই করা হয়েছে বলে মত রাজনৈতিক মহলের।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, নন্দীগ্রাম আমার জন্য খুবই লাকি জায়গা। তিনি বলেন, ২০২১ এ তৃণমূল কংগ্রেসই নন্দীগ্রাম থেকে জিতবে। তিনি এও বলেন যে, নন্দীগ্রাম থেকেই জেতার পালা শুরু হবে। তিনি এও বলেন যে, প্রতিটি আসনেই তৃণমূল জিতবে।

তিনি বলেন, নন্দীগ্রাম আন্দোলনে শহীদ পরিবার গুলোকে পেনশন দেওয়ার কথা ভাবছে রাজ্য সরকার।

নন্দীগ্রামের সভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, নন্দীগ্রাম আন্দোলনে ১৪ জন শহীদ হয়েছিলেন। এছাড়াও আর ১০ জন মানুষ আজ ফিরে আসেন নি। তিনি নন্দীগ্রাম আন্দোলনে ১০ জন নিখোঁজের পরিবারকে ৪ লক্ষ টাকার সরকারি সাহায্য তুলে দেন।

জানিয়ে রাখি, নন্দীগ্রামে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভার আগেই ‘মমতা ব্যানার্জী গো ব্যাক” পোস্টার পড়ে। মুখ্যমন্ত্রীর সভার আগে এহেন পোস্টারের কারণে নন্দীগ্রামে ছড়িয়েছে রাজনৈতিক উত্তাপ।

শাসক দল তৃণমূলের তরফ থেকে অভিযোগ করে বলা হয়েছে যে, বিজেপির লোকজন এই পোস্টার লাগিয়েছে। যদিও বিজেপির তরফ থেকে সমস্ত অভিযোগ খারিজ করে দেওয়া হয়েছে।

বিজেপির তরফ থেকে বলা হয়েছে যে, নন্দীগ্রামের মানুষই তৃণমূল নেত্রীর বিরোধিতা করছে। এর সাথে বিজেপির কোনও যোগ নেই। আরেকদিকে, তৃণমূল নেতা অখিল গিরি বিজেপির দিকে অভিযোগের আঙুল তুলে বলেছেন, এসব করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভায় জনপ্লাবন আটকানো যাবে না।