প্রধানমন্ত্রীর ‘মন কি বাতে’ডিসলাইকের বন্যা, সেই ভিডিওর কমেন্ট সেকশন বন্ধ করল প্রধানমন্ত্রীর দফতর

ইউবিজি নিউজ ব্যুরো : মনের কথা বলতে পারবেন না! লাইকের থেকে বাড়ছে ডিসলাইক, ‘ভীতি’ থেকেই কি কমেন্ট সেকশন বন্ধ করল প্রধানমন্ত্রীর দফতর?

একটা সময় দেশের কোটি কোটি মানুষ শুনতেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির (Narendra Modi) মনের কথা। রেডিও বা দূরদর্শন তো বটেই, সোশ্যাল মিডিয়াতেও তুমুল জনপ্রিয় ছিল প্রধানমন্ত্রীর প্রিয় অনুষ্ঠান ‘মন কি বাত‘।

সেই জনপ্রিয়তা কমার ইঙ্গিত অনেকদিন ধরেই মিলছিল। সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘মন কি বাত’ নিয়ে আলোচনাও কমছিল নিয়মিতভাবেই। কিন্তু এবার যেটা হল সেটা কল্পনার অতীত। মোদির সাম্প্রতিকতম ‘মন কি বাত’ (Maan Ki Baat) অনুষ্ঠানের ভিডিওয় লাইকের থেকে ডিসলাইক পড়ল অনেক বেশি।

তবে এবার সেই ভিডিও এর কমেন্ট সেকশন ও বন্ধ করলেন প্রধানমন্ত্রী দফতর, দর্শকেরা মনের কথা বলতে পারবেন না! যার জেরেই এই পদক্ষেপ বলে মনে করা হচ্ছে।

তাহলে কি এটা মোদির জনপ্রিয়তা কমার ইঙ্গিত? প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে রাজনৈতিক মহলে।রবিবার মোদির ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার কিছুক্ষণ পরই ভিডিওটি ইউটিউবে আপলোড করা হয়। কিন্তু আপলোড হওয়ার পর থেকেই তাতে ডিসলাইকের বন্যা বইতে শুরু করে।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ভিডিওটিতে আড়াই লক্ষের বেশি মানুষ ডিসলাইক করেছেন। আর লাইক করেছেন মোটে ২৯ হাজার মানুষ। অর্থাৎ অপছন্দকারীদের সংখ্যাটা পছন্দকারীদের প্রায় সাড়ে ৯ গুণ।

[embedyt] https://www.youtube.com/watch?v=CECeMxOxt-Q[/embedyt]

কিন্তু কেন এই ডিসলাইকের বন্যা? তাহলে কি মোদির জনপ্রিয়তা কমে গেল? রাজনৈতিক মহল বলছে, এর সঙ্গে মোদিরসার্বিক জনপ্রিয়তার কোনও সম্পর্ক নেই। আসলে করোনা আবহে ‌NEET, JEE এবং কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের চূড়ান্ত বর্ষের পরীক্ষা আয়োজনের সরকারি সিদ্ধান্ত ‘অ – পছন্দ ’ পড়ুয়াদের।

তাই প্রতিবাদের জন্য তাঁরা ইউটিউবকে বেছে নিয়েছেন। মূলত NEET এবং JEE পরীক্ষার্থীরাই দলে দলে প্রধানমন্ত্রীর এই ভিডিওটি ডিসলাইক করছেন। শুধু ইউটিউব নয়, ফেসবুক, টুইটারেও হচ্ছে প্রতিবাদ।

কাল দিনভর টুইটার ট্রেন্ডিংয়ে উপরের সারিতে ছিল #Mann_Ki_Nahi_Student_Ki_Baat হ্যাশট্যাগটি। যেটি কিনা প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীও (Rahul Gandhi) ব্যবহার করেছেন।

আসলে NEET, JEE এবং কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের চূড়ান্ত বর্ষের পরীক্ষা নিয়েই জাতীয় রাজনীতি এখন উত্তাল। করোনা আবহে এত বড় পরীক্ষা নেওয়া মানে পরীক্ষার্থীদের জীবন ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দেওয়া হচ্ছে।

এই অভিযোগ তুলে বিরোধী শিবির রীতিমতো সরকার পক্ষকে কাঠগড়ায় তুলছে। কিন্তু এসবের মধ্যে প্রবেশিকা বা কলেজের পরীক্ষা নিয়ে রবিবারের ‘মন কি বাতে’ একটি শব্দও খরচ করেননি প্রধানমন্ত্রী। আর তাতেই ক্ষেপেছেন পড়ুয়ারা। মন কি বাতে বাড়ছে ডিসলাইকের সংখ্যা।