আর নয় হোয়াটঅ্যাপ, এবার ব্যবহার করুন দেশি অ্যাপ সন্দেশ!

ইউবিজি নিউজ ব্যুরো : সোমবার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কিছু সরকারী কর্মকর্তা এখন সন্দেশ নামে একটি হোয়াটসঅ্যাপের দেশি বিকল্প ব্যবহার করছেন। গত বছর, ভারত সরকার হোয়াটসঅ্যাপ-চ্যাটের মতো বৈশিষ্ট্যটিতে কাজ করার পরিকল্পনা নিশ্চিত করেছে এবং দেখে মনে হচ্ছে অ্যাপটি এখন প্রস্তুত এবং মন্ত্রকের কর্মকর্তারা প্রাথমিকভাবে পরীক্ষা করছেন।

বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড রিপোর্ট করেছে যে কিছু মন্ত্রীর আধিকারিকরা ইতিমধ্যে সরকারী তাত্ক্ষণিক বার্তাপ্রেরণ সিস্টেমের জন্য জিমস বা সংক্ষিপ্ত ফর্মটি ব্যবহার শুরু করেছেন। গত বছর বেশ কয়েকটি প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছিল যে সরকার তৈরি চ্যাটিং অ্যাপটিকে জিআইএমএস বলা যেতে পারে। তবে দেখা যাচ্ছে যে মেসেজিং অ্যাপটি এখন একটি দেশি নাম পেয়েছে।

বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডের রিপোর্ট অনুযায়ী ইতিমধ্যেই বেশ কিছু সরকারি আধিকারি সন্দেশ নামের এই অ্যাপটি ব্যবহার করা শুরু করেছেন। গত বছর এমনটা শোনা গিয়েছিল , হোয়াটঅ্যাপের বিকল্প হিসেবে যে অ্যাপটি বানানো হচ্ছে তার নাম হতে পারে GIMS বা Government Instant Messaging System. কিন্তু পরে শোনা যায় অ্যাপের নামে দেশি ফ্লেভার যাতে থাকে সেইদিকে নজর দেওয়া হচ্ছে। আর বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডের রিপোর্ট অনুযায়ী জানান গেছে এই নতুন অ্যাপটির নাম সন্দেশ।

সন্দেশ নামের অর্থ বার্তা বা মেসেজ।
আপাতত এই অ্যাপটি সরকারি কর্মকর্তারাই ব্যবহার করলেও মনে করা হচ্ছে ভবিষ্যতে আর বৃহৎ আকারে এই অ্যাপটিকে সামনে নিয়ে আসা হবে। আপাতত gims.gov.in page পেজে গেলে সন্দেশ অ্যাপটির নাম দেখা যাচ্ছে, রয়েছে লগ ইন ও সাইন ইন করার অপশন। সেই সঙ্গে এটিও বলা হয়েছে অনুমোদিত সরকারী আধিকারিকদের ক্ষেত্রেই আপাতত এই পদ্ধতি উপলব্ধ।

আরও জানা গেছে সন্দেশ অ্যাপটি আইওএস ও অ্যান্ড্রয়েড দুই ধরণের ফোনেই কাজ করবে। ভয়েস ও ডেটা সাপোর্ট করবে এই অ্যাপ। অর্থাৎ আধুনিক যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে নতুন টেকনোলজি থাকবে এই অ্যাপে। অ্যাপটির ব্যাকএন্ড সামলাবে এনআইসি বা ন্যাশনাল ইনফরম্যাটিকস সেন্টার। ন্যাশনাল ইনফরম্যাটিকস সেন্টার ভারতের ইলেকট্রনিক্স এবং তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রকের আওতাধীন সংস্থা। আইটি পরিষেবা সরবরাহ এবং ডিজিটাল ভারতের উন্নতির ক্ষেত্রে সবরকম সাহায্য করে থাকে ন্যাশনাল ইনফরম্যাটিকস সেন্টার ।