Ad
তথ্যপ্রযুক্তি

ফেইসবুকে আপনার নাম,ছবি ব্যবহার করে নকল প্রোফাইল বানানো থেকে কিভাবে সতর্ক থাকবেন

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

প্রশান্ত সরকার : দিন দিন নতুন পদ্ধতি বের হচ্ছে ফেসবুক প্রতারণা! প্রতিনিয়ত আমরা যতোটা গুরুত্ব দিচ্ছি এই সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম টিকে ততোই যেন আমরা পা ফেলছি প্রতারণার মধ্যে।

সম্প্রতি যেই প্রতারণাটি বিগত কয়েক দিন থেকে ফেসবুকে লক্ষ্য করা যাচ্ছে এটি ফেসবুক ক্লোনিং স্ক্যাম নামে পরিচিত, যখন একজন ব্যক্তির প্রোফাইল ছবি এবং অন্যান্য সামাজিক তথ্য চুরি হয়ে যায় এবং একটি নতুন ফেসবুক প্রোফাইল তৈরি করতে ব্যবহৃত হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ক্লোন করা অ্যাকাউন্টটি একই নাম (বা একটি বন্ধ সংস্করণ) ব্যবহার করবে এবং লক্ষ্যযুক্ত ব্যক্তির বন্ধুদের কাছে বন্ধু অনুরোধ পাঠাবে। ফেসবুক বন্ধুরা ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট গ্রহন করতে পারে, একাউন্ট বুঝতে না পারা একটি ক্লোন। একবার একাউন্ট মানুষের সাথে বন্ধুত্ব করলে এটি ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ করতে বা লক্ষ্যযুক্ত ব্যক্তির নামে কেলেঙ্কারি বার্তা পাঠাতে ব্যবহার করা হতে পারে।

Ad

কিভাবে ফেসবুক ক্লোনিং প্রতিরোধ করা যায়।

পাবলিক সেটিংস ব্যবহার করে আপনি যত বেশি তথ্য এবং ফটো শেয়ার করবেন, ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট গ্রহণকারীদের কাছে ক্লোন করা অ্যাকাউন্টটি তত বেশি বৈধ হবে। ফেসবুকে আপনার গোপনীয়তা সেটিংস নিয়ন্ত্রণ করা আপনার অ্যাকাউন্টকে ক্লোন করা থেকে বিরত রাখার চাবিকাঠি।

এই কেলেঙ্কারী রোধ করার অন্যতম সেরা উপায় হল আপনি আপনার বন্ধুর তালিকা জনসাধারণের কাছ থেকে লুকিয়ে রাখুন :

Go to your profile
> Click Friends below your cover photo and select Edit Privacy from the menu
> Select an audience that is not Public (i.e. Friends Only)

তবে এখন ফেসবুক নতুন যে ফিউচার নিয়ে এসেছে প্রোফাইল লক, সেটিও এক বড় উপায় যেটাকে অন করে রাখলে থাকতে পারবেন অনেকটাই সুরক্ষিত।

কীভাবে জাল এবং ক্লোন অ্যাকাউন্টের রিপোর্ট করবেন-

যদি আপনি অনুভব করেন যে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ক্লোন করা হয়েছে, তাহলে ফেসবুককে ভুয়া অ্যাকাউন্টের প্রতিবেদন করুন। আপনি যেকোনো প্রোফাইল থেকে তিনটি বিন্দু (আরো) বিকল্পে ক্লিক করতে পারেন, এবং তারপর মেনুতে “রিপোর্ট” ক্লিক করুন। এছাড়াও, যদি আপনি একটি ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পান, তাহলে আপনার বর্তমান ফ্রেন্ড লিস্ট পর্যালোচনা করার জন্য এক মিনিট সময় নিন যাতে নিশ্চিত করা যায় যে ব্যক্তিটি ইতিমধ্যেই যোগ করা হয়নি, এবং যদি এটি একটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট থেকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট বলে মনে হয়, অ্যাকাউন্টটি রিপোর্ট করুন এবং আপনার বন্ধুকেও জানান যে তার একাউন্টটি ক্লোন করা হয়েছে।

আরও বেশ কিছু প্রতারণা ও সজাগ থাকার উপায়-

ফেসবুকে প্রতারকের কবলে পড়া থেকে রক্ষা পেতে ব্যবহারকারীকে সচেতন হতে হবে। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সাইবার দুর্বৃত্তদের দৌরাত্ম্যে এ ধরনের স্ক্যাম পুরোপুরি সরিয়ে ফেলা সম্ভব হয় না। ব্যবহারকারীদের সচেতনতা ও প্রচেষ্টা থাকা দরকার। এ ধরনের সন্দেহজনক লিংকে ক্লিক করা বা ভিডিও দেখার ক্ষেত্রে সচেতন থাকতে হবে।

গবেষকেরা বলছেন, ব্যবহারকারীরা এখন মোবাইল ফোনকে বেশি গুরুত্ব দেন বলে দুর্বৃত্তরা তাঁদের লক্ষ্য করছে বেশি। সামাজিক যোগাযোগের সাইটে আসা বিভিন্ন লিংক, বিশেষ করে মেসেঞ্জারের লিংক বা মোবাইল এসএমএসে এ ধরনের লিংক আসে বেশি। ফিশল্যাবের বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মানুষ এখন এসএমএস ও সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোয় পোস্টগুলোকে বিশ্বাসযোগ্য উৎস হিসেবে মনে করছে।

সাইবার দুর্বৃত্তদের প্রতারণার হাত থেকে রক্ষা পেতে এ ধরনের লিংকে ক্লিক করার আগে বা নির্দেশনা মানার আগে একটু দেখে নেওয়া প্রয়োজন। মনে রাখতে হবে, ফেসবুক বা অন্য কোনো সেবা থেকে লগইন লিংক এসএমএস বা অন্য কোনো উৎসে পাঠানো হবে না। অপরিচিত কেউ কোনো লিংক পাঠালে তাতে ক্লিক করবেন না।

আরও পড়ুন