মুখ্যমন্ত্রীর শপথের দিনেই রাজ্যে ১ লক্ষ কোভ্যাক্সিন, ৪ লক্ষ কোভিশিল্ড

UBG NEWS: দেশে আছড়ে পড়েছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। পরিস্থিতি গতবছরের থেকেও বেশি ভয়াবহ। প্রায় প্রতিদিনই রেকর্ড করছে করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। স্বাস্থ্য দফতরের মঙ্গলবারের রিপোর্ট অনুযায়ী, গত একদিনে বাংলাতে মৃত্যু হয়েছে ১০৭ জনের।

এই পরিস্থিতিতে বুধবার তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর পদে শপথ নিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এদিনই রাজ্যে এসে পৌঁছল কোভ্যাক্সিনের ১ লক্ষ ডোজ। দুপুরের পর এসে পৌঁছবে আরও ৪ লক্ষ কোভিশিল্ড।

সূত্রের খবর, কেন্দ্রের তরফে রাজ্যে এই পাঁচ লক্ষ ডোজ পাঠানো হচ্ছে। যদিও কেন্দ্রের অপেক্ষায় বসে না থেকেই রাজ্যের সব বাসিন্দাকে বিনামূল্যে টিকা দিতে রাজ্য সরকার ইতিমধ্যেই ৩ কোটি টিকা কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তার মধ্যে ২ কোটি প্রতিষেধক নিজের কাছে রাখবে রাজ্য। বাকি ১ কোটি প্রতিষেধক বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে দেওয়া হতে পারে।

ইতিমধ্যেই দশ লক্ষ কোভিশিল্ড ও ৩ লক্ষ ৬০ হাজার কোভ্যাক্সিনের ডোজ অর্ডারও দিয়েছে রাজ্য। তবে তা এখনও রাজ্যে এসে পৌঁছয়নি। ফলে রাজ্যে ভ্যাকসিনের আকাল অব্যাহত। সরকারি হাসপাতালে প্রথম ডোজ পাওয়া যাচ্ছে না।  বেসরকারি হাসপাতালগুলিতে ভ্যাকসিনেশন বন্ধ। তবে এদিনের পর সেই ঘাটতি কিছুটা মিটবে বলে আশাবাদী স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকরা।

এদিনই পৌণে ১১টা নাগাদ রাজভবনে মুখ্যমন্ত্রী হিসাবহে শপথ নিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কোভিড মোকাবিলাই হবে তাঁর তৃতীয়বারের সসরকারের প্রধান কাজ। নবান্নে গিয়ে কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকেও বসেন তিনি। বর্তমানে রাজ্যে আংশিক লকডাউন চলছে। এখনই সম্পূর্ণ লকডাউনের পক্ষপাতী নন মমতা। তিনি চাইছেন মানুষ সচেতন হোক। কোভিড বিধি মেনে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে সব কাজ করার আর্জি জানাচ্ছেন তিনি। একই সঙ্গে তিনি জোর দিতে চেয়েছেন টিকাকরণের ক্ষেত্রেও।

তৃতীয় বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী পদে বসছেন, তা নিশ্চিত হতেই কেন্দ্রকে চ্যালেঞ্জের সুরে তিনি বলেছেন, কেন্দ্র বিনামূল্যে টিকা না দিলে অহিংস আন্দোলনে বসবেন তিনি।

এদিকে কোভ্যাক্সিনের পাশাপাশি বাগবাজার ভ্যাকসিন স্টোরে কোভিশিল্ডের ১ লক্ষ ৭০ হাজার ডোজ রয়েছে বলে স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর।  বুধবারই সেগুলি বিভিন্ন জায়গায় বণ্টন করা হবে বলে জানা গিয়েছে।