বিজেপি নেতা রাকেশ সিং ওর চক্রান্তের শিকার পামেলা, গ্রেফতারের পর CID তদন্তের দাবি জানান এই বিজেপি যুব মোর্চার নেত্রী

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : ভোটের মুখে যুবনেত্রীর গ্রেফতারিতে চক্রান্তের গন্ধ পাচ্ছে বিজেপি। অথচ পামেলা গোস্বামীর অভিযোগের আঙুল দলের একাংশের দিকেই। কোকেন-সহ গ্রেফতারির পর কৈলাস বিজয়বর্গীয় ঘনিষ্ঠ বিজেপি নেতা রাকেশ সিংকে কাঠগড়ায় তুললেন পামেলা। রাকেশের অবশ্য দাবি, তিনি এসবের সাতে-পাঁচে নেই। কিছুই জানেন না তিনি।

ভোটের মুখে এমন ঘটনায় কার্যত বিড়ম্বনায় পড়েছে বিজেপি। গতকাল কলকাতা থেকে কোকেন-সহ গ্রেফতার হন বিজেপি যুব মোর্চার নেত্রী পামেলা, সঙ্গে ছিলেন তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধুও। শুক্রবার নিউ আলিপুরের এনআর অ্যাভিনিউ থেকে তাঁদের গ্রেফতার করে পুলিস। ধৃতের কাছ থেকে ১০০ গ্রাম কোকেন পাওয়া গিয়েছে। পুলিসের দাবি মূল্য আনুমানিক কয়েক লক্ষ টাকা। তবে পামেলার গ্রেফতারির পিছনে পুলিস-প্রশাসনের চক্রান্তের গন্ধ পাচ্ছে গেরুয়া শিবির।

অথচ পামেলার গলাতেই উল্টো সুর। শনিবার পামেলা, তাঁর গাড়ির চালক এবং প্রবীরকে আলিপুর আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়। সংবাদ মাধ্যমের ক্যামেরা দেখে আদালত চত্বরেই কার্যত চিত্কার জুড়ে দিলেন ধৃত বিজেপি নেত্রী। তাঁর গ্রেফতারির জন্য কাঠগড়ায় তোলেন বিজেপিরই এক নেতা রাকেশ সিংকে।

এ দিন গলা চড়িয়েই পামেলা বলেন, ‘আমি চাই সিআইডি তদন্ত হোক। বিজেপির রাকেশ সিং যেন গ্রেফতার হয়। এটা ওর চক্রান্ত। কৈলাস বিজয়বর্গীয় ঘনিষ্ঠ রাকেশ সিং যেন অ্যারেস্ট হয়। এটা ওর চক্রান্ত ছিল। পরে এজলাসে তোলার সময়েও পামেলার মুখে রাকেশের নাম শোনা তিনি বলেছেন, রাকেশ সিং ইচ্ছে করে ওই ছেলেটাকে পাঠিয়েছিলেন। ব্যক্তিগত কাজের জন্য পাঠিয়েছিলেন। আমি চাই সিআইডি, সিবিআই সবাই তদন্ত করুক।