একুশের ভোট হোক ঐতিহ্যের… দলের ধারাবাহিকতা কে বজায় রাখতে কালীঘাটের উচ্চবৈঠকে নজরকারা বার্তা নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

UBG NEWS :  কে তৃণমূল ছাড়ল তা নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে, জনসংযোগে মন দিন। তৃণমূলের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে বার্তা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। কোমর বেঁধে নামতে বললেন ভোটের প্রচারে। একুশের যুদ্ধে তৃণমূল, বিধানসভা ভোটের আগে তৃণমূলের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক। সেখান থেকেই ভোটের সুর বেঁধে দিলেন তৃণমূল নেত্রী।

তৃণমূলের টার্গেট একুশ৷ রণক্ষেত্রের ময়দানে ক্রমাগত বেড়েই চলেছে জোড়াফুল শিবিরের রক্তক্ষরণ৷ এসময় স্ট্র্যাটেজি ঠিক করতে তৃণমূল সুপ্রিমোর নেতৃত্বে কালীঘাটে চলল উচ্চপর্যায়ের বৈঠক৷ উপস্থিত ছিলেন সৌগত রায়, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, সুব্রত বক্সি, পার্থ চট্টোপাধ্যায়, অরূপ রায়, সুব্রত মুখোপাধ্যায় ছাড়াও ছিলেন প্রশান্ত কিশোর৷

দলের নেতাদের মমতা বলেন, ‘কে দল ছাড়ল, তা নিয়ে মাথা ঘামানোর প্রয়োজন নেই ৷ দলের নেতা-কর্মীদের এটা বুঝিয়ে দিন ৷ একুশের ভোট তৃণমূলের কাছে ঐতিহ্যের ভোট ৷ জেলায় নেতা কর্মীদের একথা বোঝাতে হবে৷ অপপ্রচার রুখে উন্নয়নের বার্তা নিয়ে জনসংযোগ করতে হবে ৷’

দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এই বৈঠকে নেতৃত্ব দিয়েছেন খোদ তৃণমূল সুপ্রিম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৈঠকে ছিলেন যুব তৃণমূল সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, সাংসদ সৌগত রায়, মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় সহ দলের প্রথম সারির নেতৃত্ববৃন্দ। যদিও তাঁদের তরফে জানান হয়েছে যে এটা ‘রুটিন মাফিক’ বৈঠক। কিন্তু হঠাৎ দলের প্রথম সারির নেতাদের এইভাবে বৈঠকে ডাক নিয়ে ইতিমধ্যেই জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছে।

উল্লেখ যোগ্য ব্যাপার, এদিনই নন্দীগ্রামে ‘হেভিওয়েট’ সভা করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি শিবির। সেখানে উপস্থিত ছিলেন, শুভেন্দু অধিকারী থেকে শুরু করে দিলীপ ঘোষ, কৈলাস বিজয়বর্গীও। সেখানে দিলীপ ঘোষ দাবি করেন, ২০০ আসন নিয়ে বিজেপি সরকারের মুখ্যমন্ত্রী যাবেন নবান্ন! একই দিনে তৃনমূলের এই বৈঠক ঘিরে জল্পনা বাড়ছে।