শোভন-বৈশাখীকে ছাড়তে রাজি বিজেপি

বর্ধমান: দলে নিতে হবে অভিনেত্রী তথা তৃণমূল সাংসদ দেবশ্রী রায়কে। এর জন্য যদি শোভন-বৈশাখী দল ছাড়ে তাহলে ছাড়ুক। এমনই জানালেন ভারতীয় জনতা পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা তথা অভিনেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়।

মাস খানেক আগে বিজেপি শিবিরে নাম লিখিয়েছেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। কলকাতার প্রাক্তন মহানাগারিক ছিলেন তিনি। সেই সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রিয় পাত্র কাননের কাঁধে ছিল গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রক সহ সংগঠনের একগুচ্ছ দায়িত্ব।

বছর খানেক আগে থেকে দলের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হয় শোভনবাবুর। যার কারণ ছিলেন তাঁর বান্ধবী অধ্যাপিকা বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। দল ছেড়েছিলেন। তারপরে গত মাসে দিল্লিতে বিজেপির কেন্দ্রীয় দফতরে গিয়ে হাতে তুলে নেন পদ্মের পতাকা। সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক ব্যক্তি বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কেও গুরুত্বপূর্ণ পদ দেওয়া হয় বিজেপির পক্ষ থেকে।

ওই যুগলের বিজেপিতে যোগদানের দিনে প্রকাশ্যে আসে আরও একটি চাঞ্চল্যকর খবর। বিজেপির কেন্দ্রীয় দফতরে দেখা যায় তৃণমূলের রায়দিঘির বিধায়ক দেবশ্রী রায়কে। যার সঙ্গে শোভনবাবুর বন্ধুত্ব দীর্ঘদিনের। তিনিও নাকি বিজেপিতে যোগ দিতে আগ্রহী। এই নিয়ে রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষের সঙ্গেও পরে কথা হয়েছে।

কিন্তু দেবশ্রী রায়কে নিলে দলে থাকবেন না শোভন-বৈশাখী। বিজেপি নেতৃত্বের কাছে এমনই শর্ত দিয়েছিলেন তাঁরা। দেবশ্রী রায় বিজেপি শিবিরে নাম না লেখালেও এই নিয়ে জলঘোলা শুরু হয়। সমস্যার সমাধান করতে আসরে নামতে হয় প্রবীণ রাজনীতিবিদ মুকুল রায়কে। দিল্লিতে শোভন-বৈশাখীকে ডেকে বৈঠকও করেন তিনি। কিন্তু জটিলতা এখনও থেকেই গিয়েছে।

এই অবস্থায় শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে প্রকাশ্যে মন্তব্য করলেন বিজেপির জাতীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য জয় বন্দ্যোপাধ্যায়। এবং অবশ্যই বিষয়টির সঙ্গে জুড়েছেন অভিনেত্রী তথা বিধায়ক দেবশ্রী রায়কেও।

রবিবার বর্ধমানের বারশুলা গ্রামে এক দলীয় সভায় হাজির ছিলেন জয় বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তিনি বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ ব্যক্তি কানন তথা শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় নামক একটি আনকোড়া মহিলা আমাদের বিজেপিতে এসেছে।” অধ্যাপিকা বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের কোনও রাজনৈতিক সচেতনতা এবং অভিজ্ঞতা নেই বলেও দাবি করেছেন জয়।

এরপরেই বিধায়ক দেবশ্রী রায়ের বিষয়ে শোভন-বৈশাখীর শর্ত নিয়ে সরব হন জয় বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপির এই জাতীয় নেতা বলেন, “আমি এই মঞ্চ থেকে আমাদের কেন্দ্রীয় এবং রাজ্য নেতৃত্বের কাছে পরিষ্কার আবেদন করতে চাই যে দেবশ্রী রায়কে দলে নেওয়া হোক। এর কারণে যদি বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় দল ছেড়ে চলে যায় তাহলে চলে যাবে।”

এখানেই শেষ হয়ে যায়নি শোভন-বৈশাখীর প্রতি জয়ের কটাক্ষ। তিনি বলেন, “বাংলা প্রেমের জায়গা। এখানে পরকিয়ার কোনও জায়গা নেই। নিজের স্বামী থাকতে পরের স্বামীর সঙ্গে সিঁদুর পরে ঘুরেবে এটা বাংলার মানুষ কখনই মেনে নেবে না।” এরপরে তিনি ফের বলেন, “দেবশ্রী রায়কে আমি আমাদের দলে স্বাগত জানাচ্ছি। এর জন্য যদি আমাদের বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শোভন চট্টোপাধ্যায়কে হারাতে হয় আমরা ওদের হারাতে রাজি আছি।”

রাজনীতিতে আসার আগে জয় বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন অভিনেতা। তাঁর অভিনীত প্রথম ছবি অপরূপার নায়িকা ছিলেন দেবশ্রী রায়। সেই সময় নায়িকা দেবশ্রী গ্ল্যামার কুইন নামে পরিচিত ছিলেন। সেই প্রসঙ্গটিও এদিন উল্লেখ করেন জয়বাবু। বাংলার মানুষকে অভিনয় দিয়ে মুগ্ধ করা দেবশ্রী রায়ের বাংলার মাটিতে বিশেষ গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে বলে দাবি করেছেন বিজেপির জাতীয় নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়।