করোনা বিধি নিষেধকে উপেক্ষা করে বেলা ১১ টার পরও দিনহাটায় খোলা থাকছে অধিকাংশ দোকান, বন্ধ করে দিল পুলিশ ও প্রশাসনের কর্তারা

দিনহাটা: করোনা সরকারি বিধি নিষেধ থাকা সত্ত্বেও ছাড় দেওয়া হয়েছে ব্যবসা-বাণিজ্যে। বিধি নিষেধ কে উপেক্ষা করে বেলা ১১ টার পরও দিনহাটার চওড়াহাট-বাজারের অধিকাংশ দোকান খোলা থাকায় সেগুলি বন্ধ করে দিল পুলিশ ও প্রশাসনের কর্তারা।

পাশাপাশি বিধি নিষেধ অমান্য করে জামাইষষ্ঠীর দিন বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে অনেকেই গাড়ি নিয়ে বের হয় বেশ কয়েকটি ছোট গাড়ি আটক করে পুলিশ। বুধবার দিনহাটা এক ব্লকের বিডিও মদনমোহন মুর্মু, দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্ত প্রমুখের নেতৃত্বে পুলিশ ও প্রশাসনের কর্তারা জামাই ষষ্ঠীর দিন ওই বাজারে যায়। সরকারি নতুন নির্দেশিকা অনুযায়ী সকাল ১১ টা পর্যন্ত বাজার খোলা থাকবে।

তৃতীয় দফায় বিধি-নিষেধের প্রথম দিনই নির্ধারিত সময়ের পরেও বাজারের মাছ, মাংস ও আনাজের দোকান অধিকাংশ খোলা থাকায় সেগুলি বন্ধ করে দিল প্রশাসন। এ দিন দিনহাটা থানার আইসি সহ মহকুমা ও ব্লক প্রশাসনের আধিকারিকরা বেলা ১১ টার পর বাজারে যান। সে সময় বাজারের সব দোকানপাট খোলা থাকায় ব্যবসায়ীদের একটি অংশের বিরুদ্ধে কার্যত ক্ষোভ প্রকাশ করেন। ব্যবসায়ীদের অনেকেই সরকারি বিধি নিষেধ মানছে না বলে অভিযোগ। তার ফলে এই রোগ ছড়িয়ে পড়ছে নানাভাবে।

এদিকে দিনহাটা মহকুমা ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষ থেকেও ব্যবসায়ীরা যাতে সরকারি বিধি নিষেধ মেনে চলে তার জন্য নজরদারির লক্ষ্যে বিশেষ টিম গঠন করা হয়েছে । সেই টিমের সদস্যরাও এ দিন থেকেই শহর ও শহরতলীর বিভিন্ন এলাকায় ব্যবসায়ীরা সঠিক সময় দোকানপাট বন্ধ করছে কিনা সেনিয়ে নজরদারি শুরু করেন বলে সংগঠনের সম্পাদক রানা গোস্বামী জানান।

যারা সরকারি বিধিনিষেধ মানবে না তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন আইনগত ব্যবস্থা নিলে সমিতি তাদের পাশে দাঁড়াবে না বলেও তিনি উল্লেখ করেন। ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সম্পাদক উৎপলেন্দু রায় বলেন, সরকারি বিধি নিষেধ সকলকেই মেনে চলতে হবে। যারা বিধিনিষেধ লংঘন করার চেষ্টা করবে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসন যেমন আইনগত ব্যবস্থা নেবে তেমনি সংগঠনের পক্ষ থেকেও প্রয়োজনে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে তাদের বিরুদ্ধে।

এদিকে এ দিন প্রশাসনের পক্ষ থেকে দিনহাটা শহরের পাঁচ মাথার মোড়ে বাইক থেকে শুরু করে চার চাকার বিভিন্ন গাড়ির উপর বিশেষ নজরদারি চালানো হয়। সরকারি বিধি নিষেধ অনুযায়ী ইমারজেন্সি ছাড়া সবরকম যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। তা সত্ত্বেও এ দিন বাইক থেকে শুরু করে বিভিন্ন রকম ছোট গাড়ি অধিক সংখ্যায় চলাচল করতেই পুলিশ ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে অভিযান শুরু হয়।

দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্ত জানান, করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় নানাভাবে চেষ্টা শুরু হয়েছে। সরকারি ভাবে বিধি নিষেধ ঘোষণা করা সত্ত্বেও তা অমান্য করার অভিযোগে ১৫ টি চার চাকার ছোট গাড়ি আটকানো হয়েছে। এছাড়া এদিন বাজারে বেশ কয়েকটি দোকান বন্ধ করে দেওয়া হয়।

দিনহাটা এক ব্লকের বিডিও মদনমোহন মুর্মু বলেন,”সরকারি বিধি নিষেধের পরেও চওড়াহাট বাজারে বেলা ১১ তারপর মাছ, মাংস থেকে শুরু করে আনাজের দোকান প্রায় সবই খোলা থাকায় সেগুলি বন্ধ করে দেওয়া হয়।”