রাজবংশী সম্প্রদায়ের প্রার্থী হিসেবে ২০২১ – এর বিধানসভা নির্বাচনে দাঁড়ানোর ইচ্ছা বংশী বদন বর্মনের

ইউবিজি নিউজ ব্যুরো : রাজবংশী সম্প্রদায়ের সমস্ত দাবি ইতিমধ্যেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মেনে নিয়েছেন বলে জানান রাজবংশী ভাষা একাডেমির চেয়ারম্যান বংশী বদন বর্মন।পাশাপাশি আগামী ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ক্ষেত্রেও রাজবংশী সম্প্রদায়ের অগ্রাধিকার বলে দাবি করেন তিনি। বিশেষ করে নিজের ক্ষেত্রে কোচবিহার দিনহাটা বিধানসভা এলাকা থেকে প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন বংশী।

সোমবার কোচবিহারে এক সাংবাদিক বৈঠকে এমনটাই জানালেন তিনি। তিনি আরো বলেন,রাজবংশী সম্প্রদায়ের সার্বিক উন্নয়নের জন্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যথেষ্ট গঠনমূলক ভূমিকা গ্রহণ করেছেন। রাজবংশী ভাষায় একাডেমি, নারায়নী সেনার ঘোষণা, রাজবংশী ভাষার সংবিধান, পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয় রাজবংশী ভাষার শিক্ষা,কোচবিহার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নাম পরিবর্তন করে মহারাজার নামে নামকরণ, ইত্যাদি সদর্থক ভূমিকা পালন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

সমগ্র উত্তরবঙ্গ জুড়ে যেখানে রাজনৈতিক সম্প্রদায়ের গুরুত্ব অপরিসীম সেইখানে রাজনৈতিক সম্প্রদায়ের কোনো জনপ্রতিনিধি নেই।তাই আগামী ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনে যদি মুখ্যমন্ত্রী তাকে প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করেন তাহলে তিনি দিনহাটা বিধানসভা এলাকা থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চান। সেই সাথে কোচবিহার জেলা কে রাজ্য ঘোষণা করার দাবি কেন্দ্রের কাছে অপরিবর্তিত থাকবে বলেও জানান বংশী।

নারায়ণী সেনা আর বৈধতা প্রদানের কারণে তিনি মুখ্যমন্ত্রী কে ধন্যবাদ জানান এই দিন। পাশাপাশি রাজবংশী সম্প্রদায়ের মানুষজনের যাতে প্রাথমিক স্তর থেকেই নিজেদের মাতৃভাষায় পড়াশোনা করতে পারেন সেই কারণে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।জেলায় প্রায় ২০০ প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে সেখানে রাজবংশী ভাষার পঠন-পাঠন চালু করার দাবি জানিয়েছেন সম্প্রদায়।