মালদায় ধৃত চিনা নাগরিককে জেরা করবে এনআইএ, জেরা করতে এল উত্তরপ্রদেশের সন্ত্রাসদমন বাহিনীর বিশেষ দলও

মালদা, ১১ জুনঃ অনুপ্রবেশের অভিযোগে মালদহের কালিয়াচক থেকে ধৃত চিনা নাগরিক হান জুন উই-কে জেরা করতে রাজ্যে এল উত্তরপ্রদেশের সন্ত্রাসদমন বাহিনীর বিশেষ দল।

বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া মালদহের কালিয়াচকে থেকে ধৃত হান জানুইকে জিজ্ঞাসাবাদে মিলেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। বিএসএফ সূত্রে খবর, ধৃতকে জিজ্ঞাসাবাদ করে অফিসাররা এক প্রকার নিশ্চিত, হান জানুই চিনা গুপ্তচর। আজ ধৃতকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে এনআইএ।

ধৃত হান জানুইকে নিয়ে ইতিমধ্যে একটি রিপোর্ট পেশ করেছে বিএসএফ। কলকাতায় বিএসএফ-এর দফতরে সেই রিপোর্ট পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। রিপোর্টে হান জানুই কে ‘ওয়ান্টেড ক্রিমিনাল’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। ধৃতের কাছ থেকে মিলেছে চিন, বাংলাদেশ ও ভারতের একাধিক সিম কার্ড, টাকা পাঠানোর মেশিন, মার্কিন ডলার, বাংলাদেশি মুদ্রা ও ভারতের টাকা। বাজেয়াপ্ত হয়েছে তার মোবাইল, ল্যাপটপ ও পাসপোর্ট। জানা গিয়েছে, ২ জুন বিজনেস ভিসা নিয়ে বাংলাদেশে এসেছিলেন চিনের হুবাই প্রদেশের বাসিন্দা হান জানুই। এরপর ভারতে অনুপ্রবেশ করেন।

প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে, ২০১৯-এর পর থেকে তিনবার ভারতে এসেছিলেন তিনি। গুরুগ্রামের স্টার স্প্রিং হোটেলে ছিলেন তিনি। হান জানুইয়ে এক শাগরেদ সান জিইয়াংকে কিছুদিনের আগেই লখনউ থেকে গ্রেফতার করেছে এটিএস। তাঁর কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে ১০ থেকে ১৫টি সিমকার্ড।

স্থানীয় সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার সকালে কালিয়াচকের মিলিক সুলতানপুর এলাকায় এক ব্যক্তিকে ঘোরাঘুরি করতে দেখেন স্থানীয় বাসিন্দারা। সন্দেহ হওয়ায় বাংলাদেশ সীমান্ত কর্তব্যরত বিএসএফ জওয়ানদের বিষয়টি জানান তাঁরা। এরপরই ওই চিনা নাগরিককে আটক করা হয়। খবর পৌঁছয় কালিয়াচক থানায়। শেষপর্যন্ত ধৃতকে পুলিসের হাতে তুলে দেয় বিএসএফ।

এদিকে, যে অঞ্চল থেকে চিনা নাগরিক ধরা পড়েন সেই মিরিক সুলতানপুর এলাকাটি জাল নোটের করিডর হিসাবে পরিচিত। বিগতদিনে এই করিডর দিয়ে নানা অপরাধমূলক কাজের ঘটনা ঘটেছে। ফলে গোয়ান্দাকর্তাদের অনুমান এই চিনা নাগরিকের মিরিক সুলতানপুরে সন্দেহজনকভাবে ঘোরার পিছনে কোন অসৎ উদ্দেশ্য থাকলেও থাকতে পারে। সেই কারণেই তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে উত্তরপ্রদেশের সন্ত্রাস দমন বাহিনীর দল৷