Ad
মালদারাজ্যরায়গঞ্জ

কল্পতরু মুখ্যমন্ত্রী, হাতে চাঁদ পেল কৃষকরা

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

চাঁচলঃ প্রতিশ্রুতি পূরণ! কৃষকদের জন্য কল্পতরু মুখ্যমন্ত্রী। ফের তৃতীয় বারে ক্ষমতায় আসার একমাস পরেই রাজ্যেলর কৃষকদের জন্য ভাতা বৃদ্ধির ঘোষনা করেছে রাজ্যৃ সরকার।

গত বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নীলসাদা নবান্নের সভাঘরে কৃষকদের জন্য ভাতা বৃদ্ধির কথা ঘোষণা করেন। এবার থেকে কৃষকবন্ধু প্রকল্পের ভাতা ৫ হাজার থেকে বৃদ্ধি করে ১০ হাজার টাকা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। কৃষক বন্ধু প্রকল্পের ভাতা দ্বিগুণ বৃদ্ধি হওয়ায় খুশি মালদা জেলার চাঁচল মহকুমার কৃষক বন্ধুরা। আকাশে থেকে যেন চাঁদ পড়লো কৃষকদের হাতে।

Ad

দ্বিফসলীর পরিচর্যার আর্থিক সঙ্কট থেকে মুক্ত হওয়ার অনুমান করছে কৃষকরা। পাশাপাশি ১৮-৬০বছর বয়সি কোনও কৃষকের স্বাভাবিক বা অস্বাভাবিক মৃত্যুতে পরিবারকে সরকার এককালীন দুই লক্ষ আর্থিক অনুদান হিসেবে দিয়ে থাকে রাজ্য সরকার। সে তো থাকছেই তবে ফের ভাতা বৃদ্ধিতে খোশ মেজাজে দেখা যাচ্ছে চাঁচল মহকুমা এলাকার ৬টি ব্লকের চাষীদের। মূলত চাঁচল মহকুমার হরিশ্চন্দ্রপুর, চাঁচল ও রতুয়া এলাকার মানুষের মূল পেশ কৃষিজীবি।

কৃষি দপ্তর সূত্রে খবর, চাঁচল-১ নং ব্লকে ১০,৫০০ হেক্টর জমিতে চাষ হয়ে থাকে। তবে বেশিরভাগই জমিতে ধান চাষ হয়। এছাড়া অর্থকরী ফসল পাট, ভুট্টা, সরষে, গম চাষ হয়ে থাকে। তবে নদী তীরবর্তী এলাকা গুলিতে সব্জী চাষ হয়ে থাকে। যার পরিমাণ চাঁচলে প্রায় ২৫০ হেক্টর জমি আনাজ প্রধান।

চাঁচল মহকুমার সাঞ্জীব মৌজার কৃষক মোহাম্মদ আবুবক্করের মুখে শোনা গেল মুখমন্ত্রীর ভূয়সী প্রশংসা। তিনি বলেন, ফসলের ফলন নিয়ে আমরা রীতিমতো পরিচর্যা করে থাকি। তাছাড়া ফসল উৎপাদন বৃদ্ধির জন্যমইউরিয়া, পটাশ, ফসফেট, পোকা মুক্ত করার জন্য কীটনাশক প্রয়োগ ও বিভিন্ন ভাবে আর্থিক ব্যেয় করতে হয়। এছাড়াও সময় মতো জমিতে শ্রমিক লাগিয়ে কাজ করানো হয়ে থাকে।সবটাই অর্থের উপর নির্ভরশীল চাষীরা।

তবে এক লাফে ভাতা দ্বিগুণ করলো পশ্চিমবঙ্গ সরকার। রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্তে খুশি কৃষক আবুবক্কর সহ চাঁচল মহকুমার ৬টি ব্লকের লক্ষাধিক কৃষকরা। মুখ্যকমন্ত্রীকে ধন্যসবাদ জ্ঞাপণ করেছে সকলেই।

এদিকে মালদা জেলা পরিষদের কৃষি সেচ ও সমবায় দফতরের কর্মাধ্যসক্ষ রফিকুল হোসেন অঙ্গীকার করে বলেন, মাননীয় মুখ্য্মন্ত্রী কথা রাখছেন। রাজ্যেি প্রথম বার ক্ষমতাই এসেই কৃষকদের নিয়ে মুখ্যরমন্ত্রীর ভাবনা শুরু হয়েছে। কৃষকদের স্বনির্ভর করার লক্ষ্যেই নানা প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে। ভাতা দ্বিগুনের কথা ঘোষনা করেছে রাজ্যে্ সরকার। জেলার প্রতিটি ব্লকের কৃষি আধিকারিকের সাথে তিনি যোগাযোগ রাখছেন।

রফিকুল বলেন, মালদা জেলায় প্রায় ২,৯৯০০০ উপভোক্তা কৃষক বন্ধুর আওতায় এসেছে। নথি গরমিলের জন্যয় আরোও বহু কৃষক কৃষক বন্ধুর আওতায় আসতে পারছে না। তাদেরও লক্ষ্যগ পূরণে সহযোগিতা করা হচ্ছে। মুখ্যেমন্ত্রী একলাফে ভাতা দ্বিগুন করাতে চাষীরা ফসল উৎপাদনে আগ্রহী হবে বলে মনে করছে কৃষি দপ্তর।

আরও পড়ুন