Ad
মালদা

বিয়ের ১৫ দিনের মাথায় যুবকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার, খুন নাকি আত্মহত্যা! মৃত্যু নিয়ে রহস্য

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

মালদা, ৩০ সেপ্টেম্বর: সদ্য বিবাহিত এক যুবকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধারকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ালো মালদার হরিশ্চন্দ্রপুর থানা এলাকায়। মৃতের শরীরের একাধিক জায়গায় আঘাতের চিহ্ন থাকায়, তাকে খুন করা হয়েছে বলে দাবী মৃতের পরিবারের। ওই যুবকের মৃত্যুর ঘটনা খুন না আত্মহত্যা, তা খতিয়ে দেখতে তদন্ত শুরু করেছে হরিশ্চন্দ্রপুর থানার পুলিশ।

হরিশ্চন্দ্রপুর থানার দ্বিগুণ গ্রামের বাসিন্দা সানাউল্লাহ। মাত্র ১৫ দিন আগেই বিয়ে হয়েছিল তার। পরিবার সূত্রের দাবি, গত রাতে একাই ঘুমিয়ে ছিল সে। তার মা তাদের বাড়ির পাশে কাকার বাড়িতে ঘুমোতে যান। তারপর সকালে এসে ঘরের মধ্যে ঝুলন্ত অবস্থায় ছেলের দেহ দেখতে পান মা। অভিযোগ বছর কুড়ির ওই যুবকের শরীরে একাধিক জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাছাড়া তার আত্মহত্যা করার মতো কোনো কারণ নেই বলে দাবি পরিবারের। তাই পরিবারের লোকজনের দাবী খুন করা হয়েছে সানাউল্লাহকে। শুধু পরিবারই নয় স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্যও ওই যুবককে খুন করা হয়েছে বলেই মনে করছেন।

Ad

মহম্মদ মতিউর রহমান নামে ওই পঞ্চায়েত সদস্য বলেন, “সকাল সাতটার সময় আমি এই ঘটনার কথা জানতে পারি। এসে যা দেখলাম মনে হচ্ছে খুন করা হয়েছে সানাউল্লাহকে। কারণ তার শরীরে একাধিক জায়গায় ক্ষত চিহ্ন এবং রক্তের দাগ রয়েছে। আমরা চাইছি পুলিশ ঘটনার সঠিক তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের শাস্তি দিক।”

সানাউল্লার মা বলেন, “কাল রাতে আমরা একসাথেই খাওয়া-দাওয়া করেছিলাম। পাশে আমার জায়ের বাড়িতে কেউ না থাকায় আমি ঘুমোতে যাই। সকালে এসে দেখি এমন ঘটনা। ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পাই ছেলের দেহ। কিন্তু তার সারা শরীরে ক্ষত চিহ্ন। ওর সঙ্গে তো কারোর কোনো ব্যক্তিগত শত্রুতা ছিল না। তাই ভেবে পাচ্ছিনা কে বা কারা এমন করল। পুলিশ পুরো ঘটনাটি খতিয়ে দেখে দোষীদের শাস্তি দিক, এখন এটাই আমরা চাই।”

মাত্র ১৫ দিন আগে বিয়ে হয়েছিল বছর কুড়ির যুবক সানাউল্লার। বিয়ের ১৫ দিনের মাথায় এই যুবকের রহস্য মৃত্যু ঘিরে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা। ব্যক্তিগত শত্রুতা বা অন্য কারণে খুন, নাকি আত্মহত্যা করেছে ওই যুবক? এই প্রশ্নই ঘুরপাক খাচ্ছে এলাকাবাসীর মনে। সমগ্র ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে হরিশ্চন্দ্রপুর থানার পুলিশ।

আরও পড়ুন