Ad
মালদা

বিয়ের ১০ দিন পর নববধূর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার, আত্মহত্যা নাকি খুন! চাঞ্চল্য এলাকায়

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

মালদা, ২৭ সেপ্টেম্বরঃ বিয়ের মাত্র দশ দিনের মাথায় গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় উদ্ধার হল নববধূর দেহ। নিজের বাপের বাড়ির রান্নাঘরেই আজ সকালে ঝুলন্ত অবস্থায় তার দেহ উদ্ধার হয়। বাপের বাড়িতে স্বামীর সাথেই ছিল নববধূ।

গতকাল রাতেও তারা একসাথে ঘুমোতে যায়। তারপর কি এমন হল যে, আত্মঘাতী হতে হল ওই নববধূকে, সেই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন! অন্যদিকে, সকাল বেলা থেকে শ্বশুরবাড়িতে জামাইয়ের আর দেখা পাওয়া যাওয়ায়, এই মৃত্যুর পেছনে তার ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে মালদা জেলার হরিশ্চন্দ্রপুর থানার অন্তর্গত বরুই এলাকার নন্দীবাটি গ্রামে।

Ad

নন্দিবাটি গ্রামের বাসিন্দা বদিরুদ্দিনের মেয়ে মেহেজাবি খাতুনের মাত্র ১০ দিন আগে বিয়ে হয় পার্শ্ববর্তী ডাঙি গ্রামের বাসিন্দা শেখ মিন্টুর সাথে। গতকাল স্বামীকে নিয়ে মেহেজাবি তার বাপের বাড়িতেই ছিল। রাতে তারা একসাথে ঘুমোতেও যায়। আজ সকালে রান্নাঘরে মেহেজাবির ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়।

মৃতার পরিবারের দাবী গলায় ফাঁস লাগানো থাকলেও তার পা মাটির সাথে লেগেছিল। অন্যদিকে, ঘটনার পর থেকে পলাতক মেহেজাবির বর শেখ মিন্টু। সমগ্র ঘটনাটি নিয়ে হরিশ্চন্দ্রপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন মেহেজাবির বাবা বদিরুদ্দিন। এই মৃত্যু নিছক আত্মহত্যা, না খুন, তা তদন্ত করে দোষীর উপযুক্ত শাস্তি দাবী করেছেন তিনি।

এবার উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেছিল মেহজাবি। বৈবাহিক জীবন সুখের হলো না তার। মাত্র ১০ দিনের মধ্যে আত্মঘাতী হতে হলে তাকে। কিন্তু সকলের মানে এক প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে, বিয়ের ঠিক দশ দিনের মাথায় কি কারণে আত্মঘাতী হতে হলো মেহেজাবিকে? ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। ঘটনার তদন্তে নেমেছে হরিশ্চন্দ্রপুর থানার পুলিশ।

আরও পড়ুন