আগামীকাল কলকাতায় ‘কোভ্যাক্সিনের’ ট্রায়াল শুরু, স্বেচ্ছাসেবক হতে তৈরি ফিরহাদ হাকিম

ইউবিজি নিউজ ব্যুরো : আগামীকাল, বুধবার থেকে শুরু হতে চলেছে কলকাতায় করোনা ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল। কেন্দ্রীয় গবেষণা সংস্থা নাইসেডে কোভ্যাক্সিনের তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষা শুরু হবে বলে জানা গিয়েছে। সেখানে স্বেচ্ছাসেবকদের মধ্যে থাকতে পারেন কলকাতা পুরসভার প্রশাসকমণ্ডলীর চেয়ারম্যান তথা রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমও।

নাইসেড সূত্রে খবর, এক হাজার জনের উপরে টিকার পরীক্ষা–নিরীক্ষা চলবে। এক একটি দলে ভাগ করে টিকা দেওয়া হবে। আবার কোনও দলকে টিকার বদলে প্লাসিবো (স্যালাইন ওয়াটার) দেওয়া হবে। এভাবেই একবছর ধরে চলবে পর্যবেক্ষণ। যাঁরা এই পরীক্ষার মধ্যে দিয়ে যাবেন, তাঁরা অঙ্গীকারপত্রে দেওয়া ঠিকানা ছেড়ে কোথাও যেতে পারবেন না। নিয়মিত তাঁদের খোঁজ নেবে নাইসেড।

এমন কী বাড়িতে গিয়েও পর্যবেক্ষণ করবেন গবেষকরা।জানা যাচ্ছে, তাদের মধ্যে থাকতে পারেন কলকাতা পুরসভার প্রশাসকমণ্ডলীর চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিমও। তিনি করোনার টিকা নিতে তৈরি বলে জানিয়েছেন নাইসেড কর্তৃপক্ষকে। তাঁর শরীরিক পরীক্ষায় কো–মর্বিডিটি পাওয়া যায়নি। ফলে টিকা পরীক্ষার প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে গেলে, তাঁর শারীরিক সমস্যা না হওয়ারই কথা।

নাইসেড এ টিকা পরীক্ষা হলেও, স্কুল অব ট্রপিক্যাল মেডিসিন এবং সাগর দত্ত মেডিক্যাল কলেজে ‘ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল’ শুরু হওয়ার বিষয়টি এখনও অনুমোদনের অপেক্ষায়। গত ২৫ নভেম্বর রাজ্যে এসে পৌঁছায় ভারত বায়োটেকের তৈরি কো-ভ্যাকসিন। পরীক্ষামূলক প্রয়োগের জন্য হায়দরাবাদ থেকে আনা হয় ১ হাজার টিকা। ১ হাজার টিকাগুলি নাইসেডে রাখা হয়েছে।

উল্লেখ্য, দেশের বিভিন্ন রাজ্যের ২৫টি ক্লিনিকে তৃতীয় পর্বের বৃহত্তর ট্রায়াল করছে ভারত বায়োটেক। তৃতীয় পর্বে ২৬ হাজার জনকে টিকা দেওয়া হচ্ছে। দিল্লি, হায়দরাবাদে ট্রায়াল শুরু হয়ে গেছে। এবার পশ্চিমবঙ্গে টিকার ট্রায়াল শুরু হতে চলেছে। কলকাতার আইসিএমআর-নাইসেডে টিকার ইঞ্জেকশন দেওয়া হবে স্বেচ্ছাসেবকদের।নাইসেড কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, স্বেচ্ছাসেবকদের ২৮ দিনের ব্যবধানে দুটি ডোজ দেওয়া হবে। গোটা প্রক্রিয়া শেষ করতে ২১-এর ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহ হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।