“আমাকে অপমান অপমান করেছে রাজ্য সরকার”, বিস্ফোরক রাজ্যপাল

কলকাতা: কার্নিভালের দিন ডেকে অপমান করা হয়েছে। রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে এই ভাষাতেই ক্ষোভ উগরে দিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। মঙ্গলবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, ‘আমাকে ৪ ঘন্টা ধরে বসিয়ে রাখা হয়।’ এই আচরণে তিনি অপমানিত ও মর্মাহত বলে জানিয়ছেন রাজ্যপাল।

এদিন সাংবাদিকদের রাজ্যপাল বলেন, ‘‘আমায় ডেকে ওইদিন অপমান করা হয়েছে। শুধু আমাকে অপমান করাই নয়, বাংলার মানুষকে অপমান করা হয়েছে, বাংলার সংস্কৃতিকে অপমান করা হয়েছে। আমি খুবই ব্যথিত ও মর্মাহত। আমি আমার সাংবিধানিক দায়িত্ব পালন করে যাব’’। রাজ্যের প্রথম নাগরিক হওয়া সত্ত্বেও কেন তাঁর সঙ্গে এই ব্যবহার করা হল, সে নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন রাজ্যপাল। উল্লেখ্য, রেড রোডে শারদ কার্নিভালের দিন রাজ্যপালের বসার জন্য আলাদা মঞ্চ গড়া হয়েছিল। সেখানেই বসেছিলেন রাজ্যপাল।

রাজ্যপাল আরও বলেন, তিনি রাজ্যের সাধারণ মানুষকে জানাতে চান তাঁর সঙ্গে সেদিন ঠিক কী ব্যবহার করা হয়েছিল। সেদিন তিনি প্রায় ‘কেঁদে ফেলেছিলেন’ বলে জানান জগদীপ ধনকড়। তিনি রাজ্যের প্রথম নাগরিক… রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধান। তা সত্ত্বেও তাঁর সঙ্গে এমন ব্যবহার। কেন? সেই প্রশ্নই তুলছেন রাজ্যপাল।

মঙ্গলবার একটি অনুষ্ঠান থেকে বেরিয়ে ধনকড় বলেন, তিনি ও তাঁর স্ত্রী আমন্ত্রিত হয়েই সেখানে গিয়েছিলেন। দুর্গাপুজো ঘিরে রাজ্যবাসীর উৎসাহ এবং শৈল্পিক প্রতিভা দেখে তিনি মুগ্ধ। কিন্তু তাঁর সঙ্গে যে ব্যবহার করা হয়েছে তাতে তিনি কষ্ট পেয়েছেন। এটা বাংলার সংস্কৃতি নয়। ব্যক্তিগতভাবে তাঁকে নয়, আঘাত করা হয়েছে সেই সংস্কৃতিকে।

তিনি রাজ্যের একজন সেবকমাত্র, যিনি সংবিধান অনুযায়ী কাজ করছেন। পাশাপাশি সংবাদমাধ্যমকেও তিনি সাহসী হওয়ার পরামর্শ দেন। বলেন, এটা তো জরুরি অবস্থা নয়। নির্ভীকভাবে সংবাদ পরিবেশন করুন। টেলিভিশনে গোটা অনুষ্ঠান দেখে তিনি অবাক হয়েছেন। সারা দুনিয়ার লোক তাঁকে এ নিয়ে প্রশ্ন করেছেন। কোথাও দেখানো হয়নি তাঁকে। তাঁর আশা, যাঁরা এই অসম্মান করেছেন তাঁরা নিশ্চয়ই ভেবে দেখবেন।