আমি রাজনীতি ছেড়ে দেব! হুঙ্কার মমতার

ওয়েব ডেস্ক, ১৩ এপ্রিলঃ নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার পরেই বারাসতে নির্বাচনী প্রচার সভা থেকে ফের নির্বাচন কমিশনকে নিশানা করলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। হুঙ্কার ছুঁড়ে বলেছেন, ‘আমি রাজপথে লড়াই করে উঠে এসেছি। আমাকে আটকানোর চেষ্টা করে লাভ নেই। আমাকে যত আটকানোর চেষ্টা করা হবে, ততই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠব।’

মঙ্গলবার বারাসতের বিদ্যাসাগর ক্রীড়াঙ্গনে দলীয় প্রার্থী চিরঞ্জি‍ৎ চক্রবর্তীর সমর্থনে প্রচারে গিয়ে নির্বাচন কমিশনের নিষেধাজ্ঞা জারির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়ে বলেন, ‘আমাকে আঘাত করলে, আমি প্রত্যাঘাত করি। ৭২ ঘণ্টা আগে প্রচার বন্ধ, তার আগে আমাকে ২৪ ঘণ্টা প্রচার থেকে সরিয়ে নেওয়া হল, মানে আমাকে প্রচারই করতে দেওয়া হল না। এর বিচার মানুষ করবে।

কিন্তু মনে রাখতে হবে, আমি ভয়ে ঘরে ঢুকে যাওয়ার লোক নই। আমি লড়াই করব।আমাকে এত ভয় কিসের? সারা দেশের এজেন্সি নিয়ে নেমেছেন আপনারা, তাও আমাকে এত ভয়? ভারত সরকারের যত এজেন্সি, সবই আছে বিজেপি-র আছে। কিন্তু তাও হারবে, কারণ আমি স্ট্রিট ফাইটার। আমি যুদ্ধ ক্ষেত্র থেকে লড়াই করি।’

প্রতি দফার ভোটে নিয়ম করে প্রধানমন্ত্রীর সভা করতে আসার বিষয়টি উল্লেখ করে আক্রমণ চালান তৃণমূল সুপ্রিমো। তিনি প্রশ্ন তোলেন, ‘কেন প্রতি দফায় রাজ্যে এসে লাগাতার অসত্য ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী? ভোটারদের প্রভাবিত করে ভুল পথে পরিচালিত করবেন?’ প্রতি দফার ভোটে প্রধানমন্ত্রীর ভোট প্রচারে আসার বিষয়টি বন্ধ করার জন্য নির্বাচন কমিশনকে বহুবার ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে উল্লেখ করে মমতা বলেন, ‘কেন কমিশন এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিচ্ছে না বুঝে পাচ্ছি না। আমি তো বলেছি, প্রয়োজনে আমিও ভোটের দিন প্রচার করব না।’

দেশে করোনার ভয়াবহ সংক্রমণ নিয়েও মোদি এবং অমিত শাহকে জোড়া আক্রমণ করেন তৃণমূল সুপ্রিমো। কটাক্ষের সুরে বলেন, ‘ওঁদের অপদার্থতার জন্যই ফের করোনার বাড়বাড়ন্ত হয়েছে। বাংলায় এসে বড়-বড় কথা বলছেন, অথচ গুজরাতে বিজেপি-র পার্টি অফিস থেকে টিকা দেওয়া হচ্ছে। সরকারটাকে দলের ভবনে নিয়ে গিয়েছে। আমাদের এখানে তেমন নয়।

আমরা রাস্তায় থাকি। যখন কোভিড হয়েছিল, কোথায় ছিলে? প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর জন্য কোভিড বেড়েছে দেশে। আমি টিকার জন্য কেন্দ্রকে চিঠি লিখেছি, তাও দেওয়া হয়নি। আমি চাই, সবাইকে বিনামূল্যে কোভিড টিকা দিতে। বুধবার থেকে বিনামূল্যে কোভিড টিকা দেওয়া শুরু হবে।’

মতুয়াদের জন্য রাজ্যের তৃণমূল সরকার কিছুই করেনি বলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও অমিত শাহের অভিযোগ নস্যা‍ৎ করে দিয়ে পাল্টা চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে মমতা বলেন, ‘আমি যদি মতুয়াদের জন্য কিছু না করে থাকি, তাহলে রাজনীতি ছেড়ে দেব।’