আজ থেকে ‘দুয়ারে দুয়ারে সরকার! কোন কোন সুবিধা পাওয়া যাবে জেনে নিন

ওয়েব ডেস্ক, ০১ ডিসেম্বর: আজ মঙ্গলবার থেকে শুরু হচ্ছে তৃণমূল সরকারের দুয়ারে দুয়ারে সরকার কর্মসূচি। দিন কয়েক আগে বাঁকুড়ার সরকারি সভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই কর্মসূচির কথা ঘোষণা করেছিলেন। সেই মতো পয়লা ডিসেম্বর শুরু হতে চলেছে দুয়ারে দুয়ারে সরকারি সুবিধা পৌঁছে দেওয়ার কাজ।

পয়লা ডিসেম্বর অর্থাৎ মঙ্গলবার থেকে মানুষের দরজায় সরকারি প্রকল্পের সুবিধা পৌঁছে যাবে। অন্তত সরকারি ঘোষণায় তাই বলা হয়েছে। সরকারি বিভিন্ন প্রকল্পের সুবিধা যাঁদের কাছে এখনও পৌঁছয়নি, কিংবা আবেদন করেননি, এই পর্যায়ে তাঁদের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হবে। ইতিমধ্যেই জেলা প্রশাসনের আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক সেরেছেন জেলাশাসকরা।

একটি নির্দিষ্ট ব্লকে স্কুল, কলেজ, কমিউনিটি হলে সরকারি শিবিরগুলি করা হবে। পঞ্চায়েত ও পুরসভার ওয়ার্ডস্তরে এর জন্য শিবিরের আয়োজন করা হবে। সরকারি বিভিন্ন দফতরের কর্মী ও আধিকারিকরা থাকবেন।

রাজ্য প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, রাজ্য সরকারের মোট ১২টি প্রকল্পকে মানুষের কাছে পৌঁছে দেবেন সরকারি কর্মীরা। এই প্রকল্পগুলি হল

১) খাদ্য ও সরবরাহ দফতরের খাদ্যসাথী

২) স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দফতরের স্বাস্থ্যসাথী

৩) অনগ্রসর শ্রেণিকল্যাণ ও আদিবাসী উন্নয়ন দফতরের জাতিগত শংসাপত্র ও শিক্ষাশ্রী

৪) আদিবাসী উন্নয়ন দফতরের জয় জোহার

৫) অনগ্রসর শ্রেণিকল্যাণ দফতরের তফসিলি বন্ধু

৬) নারী ও শিশু উন্নয়ন এবং সমাজ কল্যাণ দফতরের কন্যাশ্রী, রূপশ্রী

৭) সংখ্যালঘু বিষয়ক ও মাদ্রাসা শিক্ষা দফতরের ঐক্যশ্রী

8) পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন দফতরের একশো দিনের কাজ

এছাড়া কৃষি দপ্তরের কৃষক বন্ধু এবং ভূমি ও ভূমি সংস্কার দফতরের মিউটেশন, পুর এলাকার জন্য বাড়ির নকশার অনুমোদন, পানীয় জলের সমস্যা মেটানো, সম্পত্তি করের মূল্যায়ন এবং জঞ্জাল সমস্যা মেটানো হবে এইসব শিবির থেকে।

রাজ্য সরকারের বিজ্ঞপ্তি বলা হয়েছে, চারটি রাউন্ডে এই কর্মসূচি চালানো হবে। প্রথম রাউন্ডের কাজ হবে ১ ডিসেম্বর থেকে ১১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। দ্বিতীয় রাউন্ডের কাজ হবে ১৫ থেকে ২৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত। তৃতীয় রাউন্ডের কাজ হবে ২ জানুয়ারি থেকে ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত এবং চতুর্থ রাউন্ডের কাজ হবে ১৮ জানুয়ারি থেকে ২৮ জানুয়ারি পর্যন্ত।

প্রকল্প সফল করতে ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসনের আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক সেরেছেন জেলাশাসকরা। সেখানে প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিয়েছেন তাঁরা। স্কুল, কলেজ, কমিউনিটি হল-সহ বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে ২ মাস ধরে আয়োজিত হবে ক্যাম্প। সেখান থেকেই মিলবে প্রকল্পের ফর্ম। এছাড়া সরকারের বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ থাকলে জানানো যাবে ড্রপ বক্সে।