ছাত্র ছাত্রীদের আন্দোলনের চাপে পরে কলেজে পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত নিলো কলেজের অধ্যক্ষ

জলপাইগুড়ি :  ছাত্র ছাত্রীদের আন্দোলনের চাপে পরে কলেজে পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত নিলো কলেজের অধ্যক্ষ। যদিও ছাত্র ছাত্রীদের দাবি যতক্ষণ বিশ্ববিদ্যালয় লিখিত ভাবে পরিক্ষা বাতিলের সিন্ধান্ত না যানাবে ততক্ষণ ছাত্র ছাত্রীদের আন্দোলন চোলবে। ছাত্র ছাত্রীদের বিক্ষোভ থেকে কলেজের অধ্যক্ষকে ঘেড়াও মুক্ত করতে আসরে নামলো জেলা প্রশাসন।

গতকাল সকাল থেকে জলপাইগুড়ি ফার্মাসি কলেজের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র ছাত্রীদের পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে কলেজ অধ্যক্ষকে আটকে বিক্ষোভ শুরু হয়েছিল। রাতভর কলেজ অধ্যক্ষ ও এক অধ্যাপকে ঘরে আটকে রাখে ছাত্র ছাত্রীরা।তাদের দাবি ছিল করোনা পরিস্তিতিতে রাজ্য সরকারের ঘোষনা অনুযায়ী সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেখানে পশ্চিমবঙ্গ হেলথ সাইন্সের বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিনে থাকা জলপাইগুড়ি ফার্মাসি কলেজে কি ভাবে পরীক্ষা নিচ্ছে।

ইতি মধ্যে রাজ্যের বিভিন্ন জেলা থেকে ৬২জন ছাত্র কলেজে পরীক্ষা দিতে এসেছে এর মধ্যে এক ছাত্রের শরীরে করোনার উপসর্গ দেখা দিয়েছে৷ এর ফলে অন্যান্য ছাত্র ছাত্রীরা আতঙ্কিত হয়ে পরে তারা পরিক্ষা বাতিলের জন্য আন্দোলন শুরু করে। ছাত্র দের বক্তব্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ঘোষনার অনুযায়ী ৮০/২০ রেসিওতে ছাত্র ছাত্রীদের নম্বর দিতে হবে৷ আজ ছাত্র ছাত্রীদের আন্দোলন প্রত্যাহার করার জন্য কলেজে জেলা প্রশাসনের পক্ষথেকে এক জন ডেপুটি মেজিস্টেকে কলেজে পাঠানো হয় ছাত্র ছাত্রীদের সাথে দীর্ঘক্ষন তাদের দাবিদাবা নিয়ে আলোচনা করেন। কলেজে প্রচুর পরিমানে পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে। ছাত্র ছাত্রীরা তাদের দাবিতে অনর। বর্তমানে ছাত্র ছাত্রীদের অধ্যক্ষকে আটকে বিক্ষোভ চোলছে।