তবে কি এবার ভারতে আইপিএল খেলতে আশা ওয়ার্নার-স্মিথদের বাড়ি ফেরানোর ব্যবস্থা করছেন সোনু সুদ?

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : তিনি করোনাকালে অনেকের কাছেই মসিহা। ত্রাতা হয়ে কখনও বাড়ি পাঠিয়েছেন পরিযায়ী শ্রমিকদের, কখনও অভুক্ত মানুষের মুখে তুলে দিয়েছেন খাদ্য, আবার কখনও জোগাড় করে দিয়েছেন হাসপাতালের বেড, ওষুধ ইত্যাদি।

তিনি সোনু সুদ। যাঁকে ইদানীংকালে অনেকে ঈশ্বর রূপে বন্দনা করছেন। কারও পড়ার খরচ চালানোর সামর্থ্য নেই, ট্যুইট করছেন সোনুকে। কেউ বাবার চিকিৎসার খরচ চালাতে পারছেন না, ভরসা সেই বলিউড অভিনেতা। প্রত্যেককেই সাধ্যমতো সাহায্য করছেন সোনু। তা বলে তিনি কোনওদিন ভাবতেও পারেননি যে, এরকম এক আব্দার ধেয়ে আসবে তাঁর দিকে!

আইপিএল খেলতে ভারতে এসেছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার, স্টিভ স্মিথ, প্যাট কামিন্স-সহ অস্ট্রেলিয়ার এক ঝাঁক তারকা। করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ে বেসামাল ভারত। বাধ্য হয়ে মাঝপথে স্থগিত করে দিতে হয়েছে আইপিএল। তবে বিদেশি ক্রিকেটারেরা এখনও সকলে ফিরতে পারেননি। যাঁদের মধ্যে অন্যতম অস্ট্রেলিয়ার তারকারা। অস্ট্রেলিয়ায় ভারত থেকে বিমান চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। উপায়ান্তর না দেখে অনেকে শ্রীলঙ্কা, কেউ কেউ আবার মলদ্বীপে গিয়ে অস্ট্রেলিয়া ফেরার চেষ্টা করছেন বলে খবর।

এই পরিস্থিতিতে এক ভক্ত শনিবার সোনু সুদকে ট্যুইট করে লেখেন যে, ওয়ার্নার-সহ অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটারদের বাড়ি ফেরানোর ব্যবস্থা করুন। সোনু গোটা ব্যাপারটায় মজা পেয়েছেন। তিনিও জবাব দেওয়ার সময় হাস্যরসের পরিচয় দেন। সোনু লেখেন, ‘এখনই ব্যাবপত্তর গুছিয়ে নাও।’ তিনি যেন বোঝাতে চান যে, অজিদের বাড়ি ফেরানোর বন্দোবস্ত করে ফেলেছেন এবং এখনই ওযার্নারদের নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার উদ্দেশে রওনা হবে তাঁর ঠিক করে দেওয়া বিমান। বলা বাহুল্য, গোটা বিষয়টায় মজাই হয়েছে ভক্ত ও সোনুর মধ্য়ে।

বলিউডে বক্স অফিসে ছবির ব্যবসা দিয়েই মাপা হয় তারকাদের যশ, খ্যাতি। কিন্তু কেবল অভিনয়, গ্ল্যামার বা পেশাদারি সাফল্য নয়, মানবিকতা দিয়েও যে অনায়াসে মন জয় করা যায় তা শেখালেন সোনু সুদ। আসমুদ্র হিমাচল যাঁকে চেনে ‘দাবাং’-এর ছেদী সিং’ হিসাবে। তাঁর নিষ্ঠুর চাহনি, পেশিবহুল চেহারা আর খুনে মেজাজ দর্শকদের শিরদাঁড়া দিয়ে হিমেল স্রোত বইয়ে দেয়। করোনা আবহে অবশ্য উলটপুরাণ হয়েছে। পর্দার খলনায়ক সোনু এখন জনতার চোখে ‘মসিহা’। লকডাউনে ভিনরাজ্যে আটকে পড়া শ্রমিকদের ফেরাতে তাঁর মহৎ উদ্যোগ দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। নিজে রাস্তায় নেমে শ্রমিকদের ফেরার ব্যবস্থা করেছেন। হাতে তুলে দিয়েছেন খাবারের প্যাকেট, জল।