মানবদেহে কোভিড ভ্যাকসিনের প্রয়োগে অসুস্থ ভলান্টিয়াররা, বন্ধ হল ট্রায়াল

ইউবিজি নিউজ ব্যুরো :- করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে ভ্যাকসিন তৈরি করার যজ্ঞে উঠেপড়ে লেগেছে বিশ্বের অনেক দেশ। ইতিমধ্যেই ট্রায়ালে বেশ খানিকটা এগিয়েও গিয়েছে কিছু দেশ। রাশিয়া তো দাবি করেছে, প্রথম পর্যায়ের ভ্যাকসিন তৈরি তাদের। যদিও এর মধ্যেই মানবদেহে কোভিড ভ্যাকসিনের ট্রায়াল বন্ধ করল ব্রিটেনের ফার্ম অ্যাস্ট্রাজেনেকা। জানা গিয়েছে, এই ভ্যাকসিন যেসব ভলান্টিয়ারদের শরীরে প্রয়োগ করা হয়েছিল, তাঁদের মধ্যে অনেকেই হঠাত্‍ করেই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তাই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা।

মঙ্গলবার রাতে অ্যাস্ট্রাজেনেকার তরফে এই ট্রায়াল বন্ধ করার কথা জানানো হয়েছে। অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশে সমান তালে ভ্যাকসিন তৈরি করার দৌড়ে ছিল এই ফার্মা কোম্পানি।

অ্যাস্ট্রাজেনেকার মুখপাত্র জানিয়েছেন, ‘এই মুহূর্তে বিশ্বজুড়ে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চলছে। বিভিন্ন দেশে এই ট্রায়াল শুরু হয়েছে। এই অবস্থায় আমরা নিজেদের ভ্যাকসিনের ট্রায়াল আপাতত বন্ধ রাখছি। কারণ একটি নিরপেক্ষ দল আগে এই ভ্যাকসিন কতটা সুরক্ষিত, তা পরীক্ষা করে দেখবে।

তারপরেই এর ট্রায়াল ফের শুরু হবে।’ কোম্পানির মুখপাত্র আরও জানিয়েছেন, ‘যদি কোনও ভ্যাকসিনের ট্রায়াল করার সময় কোনও ভলান্টিয়ারের শরীরে তার বিরূপ প্রভাব দেখা যায় তাহলে এই পদ্ধতিই মেনে চলতে হয়। আগে কমিটি এই ভ্যাকসিনের সুরক্ষা খতিয়ে দেখবে। তারপরে ফের তার ট্রায়াল শুরু হবে।’ দীর্ঘদিন ধরে অনেক মানুষের মধ্যে ট্রায়াল করতে গেলে কখনও এই ধরনের ঘটনা ঘটে বলেই জানিয়েছেন অ্যাস্ট্রাজেনেকার মুখপাত্র।

 কিন্তু কোনও রকম ঝুঁকি না নিয়েই পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে চাইছে তারা। তিনি বলেন, ‘আমরা এটা খতিয়ে দেখছি যাতে এই ভ্যাকসিন ব্যবহার করা ক্ষেত্রে ন্যূনতম কোনও ঝুঁকিও না থাকে।’ ব্রিটেনের এই কোম্পানির তরফে অবশ্য জানানো হয়নি, এই ট্রায়ালের সময় কতজন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন, কিংবা তাঁদের অসুস্থতার মাত্রা ঠিক কতটা। কোনও ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চলাকালীন বন্ধ করে দেওয়ার ঘটনা এর আগেও অনেক ঘটেছে। কিন্তু কোভিড ভ্যাকসিনের ট্রায়ালের ক্ষেত্রে এই ঘটনা প্রথম ঘটল।

এই মুহূর্তে বিশ্বজুড়ে ৯টি কোম্পানি তাদের ভ্যাকসিনের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল চালাচ্ছে। তার মধ্যে একটি কোম্পানি হল অ্যাস্ট্রাজেনেকা। ৩১ অগস্ট আমেরিকার প্রায় ১২টি সেন্টারে ৩০ হাজার ভলান্টিয়ারের নাম নথিভুক্ত করেছে তারা। সেখানেও ট্রায়াল শুরু হওয়ার কথা। অ্যাস্ট্রাজেনেকার এই ভ্যাকসিনের নাম এজেডডি১২২২। জানা গিয়েছে, ঠান্ডা লাগার একটি ভাইরাস থেকে এই ভ্যাকসিন তৈরি করে হয়েছে। কোম্পানির দাবি, মানবদেহে এই ভ্যাকসিন যাওয়ার পরে তা দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে একটাই শক্তিশালী করে তুলবে যে পরবর্তীকালে কোভিড ভ্যাকসিন শরীরে ঢোকার চেষ্টা করলে বিফল হবে। যদিও এই মুহূর্তে বন্ধ করতে হল ভ্যাকসিনের ট্রায়াল।