রাস্তার বিশালাকার গর্তে বসে স্নান,অভিনব পদ্ধতিতে প্রতিবাদে তড়িঘড়ি পদক্ষেপ গ্রহণ প্রশাসনের

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : অন্য রকম বা সাংঘাতিক কিছু একটা না ঘটা পর্যন্ত অনেক সময় পরিস্থিতির পরিবর্তন হয় না। তবে এমনটা কখনই হওয়া সমীচীন নয়।

অনেক সময়ই সঠিক সময়ে যেকোনো সমস্যার সমাধানের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের টনক নড়ে না যে, তা আরও একবার প্রমাণ করলেন এক ইন্দোনেশিয়ান ব্যক্তি। আর তাঁর এই অভিনব কাণ্ডকারখানা মুহূর্তের মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে ছড়িয়ে পড়তেই একেবারে হইহই কাণ্ড। অবশেষে তড়িঘড়ি উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করল কর্তৃপক্ষ।

এবার আসা যাক মূল বিষয়ে। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে এক ব্যক্তি ব্যস্ত রাস্তার মাঝখানে তৈরি হওয়া বিশালাকার গর্তে বসে আছেন। সশুধু যে বসে আছেন, তাই নয়, গর্তে জমা জলে স্নান করছেন।

তাঁকে আবার এই গর্তে মাছ ধরতেও দেখা গেছে। আর তাঁর এই মাছ ধরা এবং স্নান করার ভিডিও ভাইরাল হতেই ঘুম ভাঙে সেখানকার স্থানীয় প্রশাসনের। ওই ব্যক্তির এহেন কাণ্ডকারখানা প্রশাসনকে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে বাধ্য করে। একথা বললেও অত্যুক্তি হবে না।

ওই ভাইরাল ভিডিওতে আমাক ওহান নামক ওই ব্যক্তিকে পশ্চিম নুশা টেংগারার, সেন্ট্রাল লম্বোক রিজেন্সি প্রায়া শহরের এক রাস্তার মাঝখানে সৃষ্টি হওয়া গর্তে বসে স্নান করতে দেখা যায়।

একটি মগে করে তাঁকে নিজের গায়ে জল ঢালতে দেখা যায়। আবার ওই গর্তের জনে বসেই তিনি শ্যাম্পুও করেন। ওপর এক ব্যক্তিকে মাঝে এসে তাঁকে শ্যাম্পু দিয়ে যেতে দেখা যায়। সে আবার তাঁর গায়ে কিছুটা জলও ছিটিয়ে দেয়।

দিনের আলোয় ব্যস্ত সড়কের মাঝে তৈরি হওয়া গর্তে বসে ওই ব্যক্তির এহেন কার্যকলাপ, পাশ দিয়ে যাওয়া নিত্যযাত্রীদের দর্শনীয় বিষয় হয়ে ওঠে মুহূর্তেই। অনেকেই ভিডিও করতে এবং ছবি তুলতে শুরু করেন। এরপর আমাক ওহানের এই অভিনব প্রতিবাদ ছড়িয়ে পড়ে ঝড়ের গতিতে।

তাঁর এই প্রতিবাদের মধ্যে দিয়ে তিনি বোঝাতে চেয়েছেন যে, রাস্তার এই দুর্দশার কারণে কতোটা সমস্যায় পড়তে হয় যাত্রীদের। কিন্তু তা সঠিক সময়ে সারাই হয় না। যার বিরুদ্ধেই এই অভিনব প্রতিবাদ।

স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী, আমাক ওহান প্রচেষ্টা এবং উদ্দেশ্য সফল হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসন কর্তৃপক্ষ বাধ্য হয়ে পদক্ষেপ নেয় এবং তড়িঘড়ি রাস্তা মেরামতের কাজ শুরু করে।