অক্সিজেনের অভাবে সরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হলো ২৪ জন করোনা রোগীর

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : অক্সিজেনের অভাবে কর্ণাটকে ২৪ জনেরও বেশি করোনা রোগীর মৃত্যু। চামরাজনগর জেলা হাসপাতালে ঘটেছে এই মর্মান্তিক ঘটনা।

এরা সকলেই অক্সিজেন সাপোর্টে ছিলেন। যদিও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে কীভাবে মৃত্যু তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। রবিবার কর্ণাটকে করোনায় আক্রান্ত হন ৩৭ হাজার ৭৩৩ জন।

এই ঘটনায় গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদুরাপ্পা। চামরাজনগর জেলা কালেক্টরের থেকে এই ঘটনার রিপোর্ট তলব করেন তিনি।

কী করে এই ঘটনা ঘটল, তা তদন্ত করে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। হাসপাতালে অক্সিজেন সঙ্কটের জেরে রোগী মৃত্যুর ঘটনায় এদিনই জরুরি বৈঠকের ডাকেন।

মৃতদের পরিবারের অভিযোগ, গতকাল রাত পৌনে ১২টা নাগাদ হাসপাতালের অক্সিজেন শেষ হয়ে যায়। এরপরই এক-এক করে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন রোগীরা।

প্রাথমিক তদন্তে উঠে এসেছে, ওই হাসপাতালের জন্য বরাদ্দ অক্সিজেন পাঠিয়ে দেওয়া হয় মহীশূরে। কিন্তু, কার নির্দেশ এমনটা হয়েছিল, তা এখনও স্পষ্ট নয়।

এদিকে, উত্তরপ্রদেশের মেরঠেও এদিন অক্সিজেনের অভাবে মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। হাসপাতালে ভর্তি থাকা এইসব রোগীর আত্মীয়স্বজনদের অভিযোগ, দরকার থাকলেও কোনও রোগীকে বেশ খানিকক্ষণ অক্সিজেন দিতে পারেনি হাসপাতাল। ফলে ৫ জন রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

এরপর ক্ষোভে ফেটে পড়েন রোগীর আত্মীয়রা। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে। হাসপাতালের তরফে জানানো হয়েছে, যে সমস্ত রোগীদের মৃত্যু হয়েছে তাঁদের প্রত্যেকের কোমর্বিডিটি ছিল। অক্সিজেনের অভাবে মৃত্যু কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এর আগে, গত ২৩ তারিখ দিল্লির স্যার গঙ্গারাম হাসপাতালে অক্সিজেনের অভাবে ২৫ জন রোগীর মৃত্যু হয়। অক্সিজেন সঙ্কটের কারণে ভেন্টিলেটর ও বাইপ্যাপ ভালভাব কাজ করছে না বলে হাসপাতাল দাবি করে।

ওই অবস্থায় দ্রুত হাসপাতালে অক্সিজেন না পৌঁছোলে সেখানে ভর্তি আরও ৬০ জন রোগীর বিপদের সম্ভাবনা রয়েছে বলে গঙ্গারাম হাসপাতালের ডিরেক্টের জানিয়েছিলেন। পরে অবশ্য গঙ্গা রাম হাসপাতালে অক্সিজেন পাঠানো হয়।