Ad
দেশ

দুর্দান্ত সফলতা! ‘আত্মনির্ভর ভারত প্রকল্প’-র অধীনে দশ মাসে ৩.২৯ মিলিয়ন কর্মসংস্থান

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

করোনা মহামারির প্রথম ঢেউ চলাকালীন কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদী সরকার দ্বারা চালু করা একটি উচ্চাভিলাষী প্রকল্প ‍’আত্মনির্ভর ভারত কর্মসংস্থান প্রকল্প’ (এবিআরওয়াই)-এর সুবিধাগুলি এখন ক্রমশ সামনে আসতে শুরু করছে। এই প্রকল্পটি যে কতটা জনমুখী তার প্রমাণ উঠে এসেছে সাম্প্রতিক তথ্য থেকে।

এই প্রকল্পের অধীনে গত ১০ মাসে প্রায় ৩.২৯ মিলিয়ন কর্মসংস্থান তৈরি হয়েছে। প্রকল্পটি লকডাউনের সময় বেকারদের কর্মসংস্থান এবং চাকরি হারানোর কর্মীদের জন্য শুরু করা হয়েছিল। এমপ্লয়িজ প্রভিডেন্ট ফান্ড অর্গানাইজেশন (ইপিএফও) প্রকাশিত তথ্যে এই তথ্য দেওয়া হয়েছে।ইংরেজি ওয়েবসাইট ইকনমিক্স টাইমস-এ প্রকাশিত খবর অনুসারে, আত্মনির্ভর ভারত কর্মসংস্থান প্রকল্প চালু হওয়ার এক বছর পরে এই প্রকল্পের অধীনে দেশের প্রায় ৩.২৯ মিলিয়ন নাগরিকের কর্মসংস্থান তৈরি হয়েছে।

Ad

কেন্দ্র সরকার ৩১ মার্চ ২০২২-এ এই প্রকল্পের শেষ নাগাদ প্রায় ৫.৮৫ মিলিয়ন চাকরি তৈরির লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে। ইকনমিক্স টাইমস তাদের প্রতিবেদনে লিখেছে, ‍’সরকারের লক্ষ্য অনুযায়ী আগামী ছয় মাসে ২.৫৬ মিলিয়ন চাকরির কোটা পূরণ করতে হবে। সৃষ্ট মোট চাকরির মধ্যে ২.৮৮ মিলিয়ন নতুন কর্মচারী, এবং ০.৪১ মিলিয়ন পুনর্নিযুক্ত সুবিধাভোগী। ২০২১ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রকল্পের অধীনে বিতরণ করা তহবিল ছিল ১,৮৪৫ কোটি টাকা, যা ৩১ মার্চ ২০২৪ পর্যন্ত ব্যয় করা ২২,৮১০ কোটি টাকার মাত্র আট শতাংশ’। এ প্রসঙ্গে উল্লেখ্য, সরকারের উচ্চাকাঙ্ক্ষী আত্মনির্ভর ভারত কর্মসংস্থান প্রকল্পটি ২০২০ সালের নভেম্বরে চালু করা হয়েছিল। যদিও পরিকল্পনাটির প্রাথমিকভাবে সময় নির্দিষ্ট ছিল ১ অক্টোবর ২০২০ থেকে ৩০ জুন ২০২১ পর্যন্ত। কিন্তু করা হয়েছিল, মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় এটি ৩১ মার্চ ২০২২ পর্যন্ত বাড়ানো হয়।

আত্মনির্ভর ভারত কর্মসংস্থান প্রকল্প কি? কারা কিভাবে সুবিধা পাবেন?

এই স্কিমের অধীনে সরকার ১ অক্টোবর ২০২০ এবং ৩১ মার্চ ২০২২ এর মধ্যে এক হাজার কর্মচারী সহ কোম্পানিগুলিতে নতুন চাকরির ক্ষেত্রে দুই বছরের জন্য ২৪ শতাংশ (কর্মচারী এবং নিয়োগকর্তাদের জন্য ১২ শতাংশ করে) ক্ষতিপূরণ দেয়। তবে এই প্রকল্পটি শুধুমাত্র প্রযোজ্য সেই সব কর্মীদের জন্য যাঁদের মাসিক আর ১৫ হাজার টাকার কম।

আরও পড়ুন