বাংলার কৃষকরা রাজনৈতিক কারণে বঞ্চিত হচ্ছেন, কৃষকদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকে মমতাকে নিশানা মোদীর

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : শুক্রবার কৃষকদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কৃষক সম্মাননিধি ঘোষণা করলেন। কথা বললেন বিভিন্ন রাজ্যের কৃষকদের সঙ্গে। কৃষকদের কথা, কৃষক বিক্ষোভ নিয়ে কথা বলতে গিয়ে মোদী মূলত সমালোচনা করলেন দু’টি রাজ্যের– পশ্চিমবঙ্গ এবং কেরল। তবে মোদী কৃষি নিয়ে কথা বলতে গিয়ে তীব্র আক্রমণ করলেন মমতা ব্যানার্জীকে।

মোদী জানান, প্রধানমন্ত্রী কৃষক যোজনার সুবিধা দেশ জুড়ে সমস্ত কৃষকেরা পাচ্ছেন। পাচ্ছেন না শুধু পশ্চিমবঙ্গের কৃষকেরা। এবং সেটা পাচ্ছেন না সম্পূর্ণ রাজনৈতিক কারণে। পশ্চিমবঙ্গের লাখ লাখ কৃষককে কেন্দ্রীয় সরকারের এই সুবিধা পেতে দিচ্ছে না বাংলার সরকার। অথচ সেই সরকারই বাংলা থেকে দিল্লি এসে কৃষকদের বিক্ষোভ-আন্দোলনকে সমর্থন জানাচ্ছে! মোদী তীব্র ভাষায় মমতার সমালোচনা করে বলেন, কৃষক সম্মাননিধি নিয়ে রাজনীতি করছে বাংলার সরকার। কৃষকদের সঙ্গে ছবি তুলে ইভেন্ট ম্য়ানেজমেন্ট সেরে ফেলছে, কিন্তু কৃষকদের দুঃখ নিয়ে ভাবিত নয় এই সরকার।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক মহল বলছে, বাংলায় ২০২১-এর ভোটের আগে এই ভার্চুয়াল বৈঠকের মঞ্চ ব্যবহার করে কৃষি ও কৃষক-প্রশ্নে বাংলার তৃণমূল সরকার এবং তৃণমূলনেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীকে চাপে রাখলেন মোদী।

মোদী কেরলেরও সমালোচনা করেছেন। পশ্চিমবাংলায় বাম আমলে কৃষকদের জন্য কিছু করা হয়নি বলে উল্লেখ করেন তিনি। মোদী বলেন, এই বামেরাই কেরলে একই ভাবে কৃষকদের নানা সুবিধা থেকে বঞ্চিত করছে।

এর আগে সকালে টুইটে মমতাকে নিশানা করেন বিজেপি’র আইটি সেলের প্রধান ও রাজ্যে কেন্দ্রীয় সহ-পর্যবেক্ষক অমিত মালব্য। তিনি লিখেছেন, ‘আজ দেশের ৯ কোটি কৃষকের অ্যাকাউন্টে ১৮,০০০ কোটি টাকা পাঠাতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী। তবে পশ্চিমবঙ্গের কৃষকরা বঞ্চিত হবেন। কারণ কেন্দ্রীয় সরকারকে তালিকা পাঠাননি মুখ্যমন্ত্রী। পিসির অহংকারের পরিণতি কৃষকদের ভোগান্তি।’