বিনোদনহিন্দি সিনেমা

বলিউডে মাদক সেবন : করণ জোহর – আমি সেবন করি না, প্রচারও করি না

ইউবিজি নিউজ :-: মাদকের ক্ষেত্রে করণ জোহরের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা এসেছিল ধর্ম প্রোডাকশনের ২ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করার মাঝে। তিনি টুইটারের মাধ্যমে একটি বিবৃতি জারি করেছেন।

করণ বলেছিলেন, “আমি সেবন করি না বা প্রচার করি না, আমাকে এবং আমার পরিবার, সহকর্মী এবং ধর্ম প্রোডাকশন সম্পর্কে যা বলা হচ্ছে তা গুরুত্বহীন।”

 অন্যদিকে, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ ব্যুরো (এনসিবি) কর্ণের প্রোডাকশন হাউস ধর্ম প্রোডাকশনকে প্রযোজক ক্ষিতিজ রবি প্রসাদকে গত ২০ ঘন্টা ধরে আটকের জন্য জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

 শুক্রবার হরিজনের বাড়িতেও এনসিবি অভিযান চালায়। সূত্রের খবর, তার বাড়ি থেকে কিছু ওষুধ পাওয়া গেছে। এনসিবি আজ হরিজনকেও গ্রেপ্তার করতে পারে।

Ad

সুশান্ত সিং রাজপুতের অকালমৃত্যুর পর থেকে বারবার কাঠগড়ায় তোলা হয়েছে করণ জোহরকে। কখনও তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ স্বজপোষণ অর্থাৎ নেপোটিজমের। কখনও বা সরাসরি মাদক কাণ্ডে নাম জড়িয়েছে পরিচালকের।

 তবে এবার তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগ নিয়ে মুখ খুললেন করণ। বলিউডের এই পরিচালক এবার স্পষ্ট জানিয়েছেন, তিনি কোনওদিন ড্রাগ নেননি। কাউকে ড্রাগ নেওয়ার কথাও বলেননি। অর্থাৎ মাদক সেবনের জন্য কাউকে সমর্থন করেননি।

সুশান্তের মৃত্যুর ঘটনায় মাদক যোগ রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে তদন্তে নেমেছে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো। তারপর থেকে প্রকাশ্যে এসেছে একাধিক বলিউড তারকার নাম। আর এই প্রসঙ্গেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে করণ জোহরের বাড়ির একটি পার্টির ভিডিও।

গত বছর জুলাই মাসে নিজের বাড়িতে এই পার্টি রেখেছিলেন করণ। সেখানে হাজির ছিলেন দীপিকা পাড়ুকোন, জোয়া আখতার, বরুণ ধাওয়ান, মালাইকা অরোরা, ভিকি কৌশল ও আরও অনেকে।

 এই পার্টিতে এবং করণের হাউস পার্টিতে বরাবরই তারকারা মাদক সেবন করে বলে তোপ দেগেছেন অনেকে। তাঁদের মধ্যে অন্যতম কঙ্গনা রানাওয়াত। বি-টাউনে করণ-কঙ্গনা মহারণ অবশ্য বহু পুরনো।

তবে এইসব অভিযোগ নস্যাৎ করে করণ জানিয়েছেন, গত কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম, সোশ্যাল মিডিয়া, খবরের কাগজ এইসব জায়গায় তাঁর বিরুদ্ধে যা যা বলা হচ্ছে তার সবই মিথ্যে এবং যুক্তিহীন ও ভিত্তিহীন।

 এর পাশাপাশি করণ এও জানিয়েছেন যে সদ্য এনসিবি দফতরে হাজিরা দেওয়া ক্ষিতীশ রবিপ্রসাদ এবং অনুভব চোপড়াকে ব্যক্তিগত ভাবে মোটেও চেনেন না তিনি। তাই এই দু’জন করণের ঘনিষ্ঠ এমনটা বলা উচিত নয়।

 করণের কথায়, অনুভব চোপড়া কোনওদিনই ধর্মা প্রোডাকশনের কর্মী ছিলেন না। কেবল ২০১১ থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে ধর্মা-র সঙ্গে দুটি প্রোজেক্টে কাজ করেছিলেন তিনি।

আর ক্ষিতীশ রবিপ্রসাদ গত বছর ধর্মা প্রোডাকশনের সঙ্গে জড়িত একটি শাখা সংগঠন ধর্মাটিক এনটারটেনমেন্টের সঙ্গে যুক্ত হয়েছিলেন। একটি প্রোজেক্টের এক্সিকিউটিভ প্রোডিউসার হিসেবে চুক্তির ভিত্তিতে নিয়োগ করা হয়েছিল ক্ষিতীশকে।

তবে পরে ওই প্রোজেক্টের কাজ আর এগোয়নি। করণের সাফ কথা তিনি এবং তাঁর সংস্থা ধর্মা প্রোডাকশন কোনও ভাবেই এই মাদক কাণ্ডের সঙ্গে জড়িত নন। নিজের বাড়ির পার্টিতেও কাউকে ড্রাগ দেননি তিনি।

নিজেও নেননি। শুধু বাড়ি নয়, এ যাবৎ কোথাও কখনই নিজে মাদক সেবন করা বা কাউকে ড্রাগ নেওয়ার কাজে সমর্থন করেননি তিনি ও তাঁর সংগঠন, এমনটাই দাবি করণের।

[ লেটেস্ট খবর এবং আপডেট জানার জন্য ফলো করুন ইউবিজি নিউজ ফেসবুক পেজ । ব্রেকিং নিউজ এবং ডেইলি খবরের আপডেটে পেতে যুক্ত হোন হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে  ]