Ad
দিল্লি

নির্ভয়াকাণ্ডের দোষীদের ফাঁসির আদেশ সুপ্রিম কোর্টের

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

নয়াদিল্লি: নির্ভয়াকাণ্ডে ৪ দোষীকে মৃত্যুদণ্ড দিল আদালত। এদিন দোষী অক্ষয়ের সাজার পুনর্বিবেচনার আর্জি খারিজ করে শীর্ষ আদালত তার ফাঁসির সাজা বহাল রাখে। অভিযুক্তের ফাঁসির সাজা বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট। শীর্ষ আদালতের এই সিদ্ধান্তকে কুর্নিশ জানিয়েছেন নির্ভয়ার পরিবার।

গত মঙ্গলবার মৃত্যুদণ্ডের নির্দেশ খারিজের আর্জি জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে রিভিউ পিটিশন দায়ের করে নির্ভয়ার ধর্ষক৷ অক্ষয় কুমার সিং নামে মৃত্যুদণ্ড সাজাপ্রাপ্ত ওই আসামী রিভিউ পিটিশনে জানিয়েছে, দিল্লির দূষণের জেরে তার আয়ু এমনিই কমে যাচ্ছে৷ তাই ফাঁসির আদেশ অকার্যকর করা হোক৷

Ad

সুপ্রিম কোর্টে এই পিটিশন জমা করে নির্ভয়া গণধর্ষণকাণ্ডের অন্যতম ধর্ষক৷ দিল্লি হাইকোর্ট এবং পরে সুপ্রিম কোর্ট নির্ভয়ার চার ধষর্ককে ফাঁসির সাজা বহাল রাখে৷ কিন্তু কিছুদিন আগে আরও এক ধর্ষক বিনোদ শর্মা ক্ষমাপ্রার্থনার আর্জি জানায় রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের কাছে৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সেই আর্জি গ্রহণ না করার আবেদন করে রাষ্ট্রপতির কাছে৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের সুপারিশে ক্ষমাপ্রার্থনার আর্জি খারিজ করে দেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ৷

এদিকে সুপ্রিম কোর্টে নতুন করে দায়ের করা রিভিউ পিটিশনে অক্ষয় কুমার সিং দাবি করে, সে নির্দোষ৷ তাকে এই মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ মৃত্যুদণ্ড খারিজের দাবিতে অক্ষয়ের যুক্তি, অনেক প্রগতিশীল দেশেই মৃত্যুদণ্ড তুলে দেওয়া হয়েছে৷ তাছাড়া দিল্লির দূষণ এবং জলের কারণে জেরে তার আয়ু এমনি কমে যাচ্ছে৷ অবশেষে বুধবার অক্ষয়ের সাজার পুনর্বিবেচনার আর্জি খারিজ করে দেয় আদালত।

২০১২ সালের ১৬ ডিসেম্বরের রাত৷ এক গণধর্ষণের ঘটনায় শিউরে উঠেছিল গোটা দেশ৷ সাত বছর পর ১৮ ডিসেম্বর ফাঁসির সাজা কার্যকর হতে চলেছে নির্ভয়ার দোষীদের৷ তিহার জেল সূত্রে তেমনই খবর৷

বিচার প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার পর অভিযুক্ত চারজনের ফাঁসির সাজা শোনায় দিল্লি হাইকোর্ট৷ হাইকোর্টের সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে আপিল করে দোষীরা৷ সুপ্রিম কোর্ট নির্ভয়া গণধর্ষণকে ‘বর্বোরচিত ঘটনা’ অ্যাখ্যা দিয়ে হাইকোর্টের নির্দেশ বহাল রাখে৷ এদিকে এতদিন হয়ে যাওয়া সত্ত্বেও কেন মৃত্যুদণ্ডের নির্দেশ কার্যকর করা গেল না সেই নিয়ে উঠতে থাকে প্রশ্ন৷

তবে সেই অপেক্ষা এবার শেষ হতে চলেছে বলে তিহার জেল সূত্রে খবর৷ গত ৮ ডিসেম্বর রবিবার রাতে অন্যতম আসামী বিনয় শর্মাকে মান্ডুলি জেল থেকে তিহার জেলে স্থানান্তরিত করা হয়৷ বাকি তিন মৃত্যুদণ্ড সাজাপ্রাপ্ত আসামী অক্ষয় কুমার সিং, মুকেশ সিং এবং পবন গুপ্তা তিহারেই রয়েছে৷ বিচার প্রক্রিয়া চলাকালীন তিহারে আত্মহত্যা করে পঞ্চম অভিযুক্ত রাম সিং৷ এই ঘটনায় জড়িত আরও এক অভিযুক্ত নাবালক হওয়ায় তিন বছর পরই ছাড়া পেয়ে যায়৷

আরও পড়ুন