কোভিড নিয়ে আজ থেকে কেন্দ্রের চালু নয়া নির্দেশিকা, দেখুন সেই বিধিনিষেধের তালিকা

সারাদেশে ক্রমবর্ধমান করোনভাইরাস কোভিড -১৯ ভাইরাসের বিস্তার। কোভিড -১৯ টি মামলার উদ্ভবের মধ্যে কেন্দ্র একটি নতুন নির্দেশিকা জারি করেছে যা আজ থেকে কার্যকর হবে । এই কোভিড -১৯ নির্দেশিকাগুলি ৩১ শে ডিসেম্বর পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। ডিসেম্বরের জন্য “নজরদারি, ধারনা ও সাবধানতা” নির্দেশিকা জারি করার সময় এমএইচএ বলেছে যে এই নির্দেশের মূল লক্ষ্য হ’ল স্থিতিশীল হ্রাসে দৃশ্যমান যে উল্লেখযোগ্য লাভকে একীকরণ করা in দেশে সক্রিয় মামলার সংখ্যা। স্থল পরিস্থিতি পর্যালোচনা করার পরে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিকে রাতের কারফিউর মতো স্থানীয় বিধিনিষেধ আরোপের অনুমতি দিয়েছে, তবে, কেন্দ্রীয় সরকারের সাথে পূর্বে পরামর্শ ছাড়া লকডাউন কার্যকর করা যাবে না

• নতুন নির্দেশিকা অনুসারে স্থানীয় স্তরে নাইট কার্ফু জারি করতে পারে রাজ্যগুলি। কিন্তু কনটেনমেন্ট জোনের বাইরে লকডাউন ঘোষণা করতে গেলে লাগবে কেন্দ্রের অনুমতি।
• যে সব রাজ্যে সাপ্তাহিক কেস পজিটিভিটি রেট দশ শতাংশের বেশি, সেখানে রাজ্যদের শিফট ব্যবস্থায় অফিস চালানোর পরামর্শ দিয়েছে কেন্দ্র। অর্থাৎ একসঙ্গে যাতে অনেক লোক অফিসে জড়ো না হন, তার ব্যবস্থা করতে বলা হয়েছে।
• স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশের দায়িত্ব থাকবে এটা নজরে রাখার যে কনটেনমেন্ট জোনে সমস্ত বিধিনিষেধ মানা হচ্ছে।
•যারা কোভিড নিয়ম মানছেন না, তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার অনুমতি রাজ্যদের দিয়েছে কেন্দ্র। মূলত যারা সামাজিক দূরত্ব রাখছেন না বা মাস্ক পরছেন না, তাদের চড়া ফাইন করা হচ্ছে।
যে কোনও রাজ্যের ভিতরে বা বিভিন্ন রাজ্যের মধ্যে মানুষ ও পণ্য চলাচলে কোনও বাধা নেই। এর জন্য কোনও আলাদা পাস লাগবে না।
• কনটেনমেন্ট জোনে স্বাস্থ্য দফতরের দলকে বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে কোভিড রোগীদের চিহ্নিত করতে হবে।
• আপৎকালীন পরিস্থিতি ও অত্যাবশ্যক পণ্য কেনা ছাড়া অন্য কোনও কারণে মানুষ যাতে কনটেনমেন্ট জোন থেকে না বেরিয়ে যান সেটা নজরে রাখতে বলা হয়েছে।