Ad
করোনা ভাইরাসদেশ

ভারত বায়োটেকের তৈরি কোভ্যাক্সিনের সর্বপ্রথম টিকা নিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

ইউবিজি নিউজ : করোনা টিকা নিলেন দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সোমবার একটি টুইট করে একথা নিজেই জানান তিনি। একই সঙ্গে টিকা নেওয়ার ছবি পোস্ট করেছেন তিনি। এদিন অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সে গিয়ে টিকা নেন মোদী।

টিকা নেওয়ার পর একটি টুইট করেছেন তিনি। ভারতকে করোনা মুক্ত করতে দেশবাসীকে একজোট হওয়ার ডাক দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি জানান, ‘ কোভিড-১৯ -এর সঙ্গে বিশ্ববাসীর লড়াইয়ে ভারতের বিজ্ঞানী এবং চিকিৎসকদের অবদান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।’ পাশাপাশি সকলকে টিকা নেওয়ার জন্য আবেদন জানান তিনি।

Ad

১৬ জানুয়ারি থেকে ভারতে কোভিডের টিকাকরণ শুরু হয়েছে। দু’ধরনের টিকা দেওয়া হচ্ছে। অক্সফোর্ড ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন তৈরি করেছে পুনের সেরাম ইনস্টিটিউট। আর দেশি ফার্মাসিউটিক্যাল সংস্থা ভারত বায়োটেক তৈরি করেছে কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন। এর মধ্যে কোভ্যাক্সিনের কার্যকারিতা নিয়ে বিরোধী শিবিরের অনেকে প্রশ্ন তুলেছিলেন। এও বলা হচ্ছিল যে কোভ্যাক্সিনের ট্রায়াল শেষ হয়নি।

এ হেন পরিস্থিতিতে কেন্দ্রের সরকারের তরফে যখন টিকাকরণ শুরু হয়, তখন স্বাস্থ্য কর্মীদের অনেকে কোভ্যাক্সিনের টিকা নিতে আপত্তি জানাচ্ছিলেন। কিন্তু তাৎপর্যপূর্ণ ভাবেই প্রধানমন্ত্রী নিলেন সেই টিকা।

আসলে ভারত বায়োটেক কোভ্যাক্সিন তৈরি করার পর থেকেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও তাঁর সরকার উচ্ছ্বসিত। কারণ, তিনি যে আত্মনির্ভর ভারতের কথা বলছেন, ভারত বায়োটেকের মতো একটি দেশি সংস্থা সেই স্বপ্নকে পূরণ করেছে। ভারতে তৈরি দুটি ভ্যাকসিন চাইছে বিশ্বের সমস্ত উন্নত দেশ। এদিন কোভ্যাক্সিনের টিকা নিয়ে সেই আবেগ মোদী আরও উস্কে দিতে চাইলেন বলে মনে করা হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী সোমবার সাত সকালে যখন নয়াদিল্লি এইমস হাসপাতালে টিকা নিতে যান তখন তাঁর গায়ে ছিল অসমের তৈরি বিখ্যাত গামছা। অসমে ভোট আসছে। অনেকে মনে করছেন সেই কারণেই প্রধানমন্ত্রীর গায়ে চড়ানো ছিল ওই গামছা।

প্রধানমন্ত্রীকে টিকা দেওয়ার সময়ে ছিলেন দুই নার্স। তাঁদের এক জন জন্মসূত্রে পুদুচেরির, অন্যজন কেরলের। এই দুই রাজ্যেও এ বার ভোট হবে। প্রধানমন্ত্রীর সচিবালয় সূত্রে অবশ্য বলা হচ্ছে, এ সব ঘটনাচক্রে হয়েছে। এর সঙ্গে রাজনীতির সম্পর্ক নেই।

আরও পড়ুন