ইঞ্জেকশন নয় মদ খেলেই হার মানবে করোনা, বৃদ্ধার মন্তব্যে হতবাক নেটিজেনরা

ইউবিজি নিউজ ডেস্ক : দিল্লিতে আজ থেকে আগামী ৭ দিন জারি হয়েছে লকডাউন। আজ মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল (Arvind Kejriwal) ভার্চুয়াল বৈঠকে একথা জানিয়ে দেন। লকডাউনের আগে দিল্লিতে মদের দোকানগুলিতে দেখা যায় উপচে পড়া ভিড়।

এরই মধ্যে এক বৃদ্ধাকেও শিবপুরির গীতা কলোনি এলাকায় মদের দোকানে লাইন দিতে দেখা যায়। সংবাদসংস্থা এএনআই-কে দেওয়া সাক্ষাত্‍কারে ওই বৃদ্ধা জানান,”ইঞ্জেকশনে কিচ্ছু হবে না, মদই করোনা থেকে বাঁচার একমাত্র উপায়। ওষুধে আমার কিছুই হবে না, মদ খেলেই সুস্থ থাকব। লকডাউন হলেও মদের দোকান খোলা রাখা উচিত, হাসপাতালেও যেতে হবে না, চিকিত্‍সকের কাছেও যেতে হবে না।”

তাঁর এই মন্তব্যে শোরগোল পড়ে গিয়েছে ইন্টারনেট দুনিয়ায়।যেখানে করোনা থেকে বাঁচতে দিল্লি সরকার লকডাউন জারি করেছে, সেখানে মদের দোকানগুলিতে এমন উপচে পড়া ভিড়ের পর কি আদৌ লকডাউনের মানে হয়? তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছে সাধারণ মানুষ। তার ওপর এত সচেতনতা, সতর্কতার পর ক্রেতার এমন মন্তব্যে অবাক নেটিজেনরা।

আজ মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল (Arvind Kejriwal) এও জানান, দিল্লিতে করোনার চতুর্থ ঢেউ আছড়ে পড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ২৩,৫০০ জন করোনায় আক্রান্ত। গত ৩-৪ দিনে এক একদিনে ২৫,০০০ জনও সংক্রামিত হয়েছে এমন রিপোর্ট এসেছে। দিল্লির হাসপাতালগুলিতে ইতিমধ্যে রোগীর সংখ্যা বেড়েছে, তবে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়েনি।

জরুরি পরিষেবা, মেডিকেল এবং খাদ্য পরিষেবাগুলি খোলা থাকবে। বিয়েবাড়িতে ৫০ জনের অধিক মানুষ জমায়েত করতে পারবে না। এর জন্য পৃথক অনুমতি নিতে হবে, বলে জানিয়েছেন কেজরিওয়াল। এই পরিস্থিতিতে পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য তিনি আবেদন করেন,” মাত্র ৬ দিনের লকডাউন জারি করা হয়েছে, অনুগ্রহ করে এইমুহূর্তে আপনারা দিল্লি ছেড়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করবেন না। আমি আশা করছি এই লকডাউন এক সপ্তাহের বেশি কার্যকর হবে না। দিল্লি সরকার সবরকম সহায়তা করবে।”