কোচবিহারে দল বিরোধী কাজের জন্য সাসপেন্ড দুই তৃণমূল কর্মী

মাথাভাঙ্গাঃ দল বিরোধী কাজের জন্য সাসপেন্ড হলেন শীতলকুচি ব্লকের গোলেনাওহাটি অঞ্চলের দুই তৃণমূল কর্মী ঘড়ি ও সাইকেল । গোলেনাওহাটি অঞ্চলের দাপুটে এই দুই নেতা হানিফ মিয়াঁ ওরফে ঘড়ি ও সাইফুল ইসলাম ওরফে সাইকেলকে ছয় মাসের জন্য বহিষ্কার করে তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব। এই দুই ভাই শীতলকুচিতে ঘড়ি ও সাইকেল নামেই পরিচিত।

সোমবার দলের শীতলকুচি ব্লক দলীয় কার্যালয়ে নেতৃত্বদের বৈঠকের পরেই ওই দুই নেতাকে সাসপেন্ড করার কথা ঘোষনা করেন তৃণমূল কংগ্রেসের শীতলকুচি ব্লক সভাপতি তপন কুমার গুহ। এছাড়াও সেখানে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের শীতলকুচি ব্লক সহ সভাপতি পূর্ন্য গোবিন্দ সিংহ, দলের কিষাণ খেত মজদূর সংগঠনের ব্লক সভাপতি সায়ের আলি মিয়াঁ সহ অন্যান্য নেতৃত্বরা।

তৃণমূল কংগ্রেসের এই দুই কর্মীর বিরুদ্ধে শনিবার বড় মরিচা এলাকার এক যুবকের মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ওঠে। যদিও অভিযোগ ভিত্তিহীন দাবি করেছেন অভিযুক্ত দুই তৃণমূল কর্মী। ঘটনাটি তৃণমূল কংগ্রেসের শীতলকুচি ব্লক সহসভাপতি মীমাংসা করার চেষ্টাও করেন। পরে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রবিবার শীতলকুচি পশ্চিম দলীয় কার্যালয়ের সামনে তৃণমূল কংগ্রেসের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে ওই এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায়। বন্ধ হয়ে যায় বাজারের দোকানপাট। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে ঘটনাস্থলে আসে শীতলকুচি থানার পুলিশ বাহিনী।

এই ঘটনায় জড়িত সামিউল ইসলাম নামে এক তৃণমূল কংগ্রেসের সমর্থককে আটক করে পুলিশ। সংঘর্ষের সময় তৃণমূল কংগ্রেসের এসটি.এসসি. ওবিসি সেলের শীতলকুচি ব্লক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন দলীয় কার্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন। তিনি গন্ডগোল থামাতে গেলে তাঁকেও লোহার রড দিয়ে মারধর করা হয় বলে ওই দুই তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে। এই ঘটনায় শীতলখুচি থানায় লিখিত ভাবে অভিযোগ জানানো হয়। এই ঘটনার জেরেই দল ঘড়ি ও সাইকেলকে সাসপেন্ড করে বলে তৃণমূল সূত্রের খবর।

তৃণমূল কংগ্রেসের শীতলকুচি ব্লক সভাপতি তপন কুমার গুহ বলেন, “দল বিরোধি কার্যকলাপের জন্য জেলা সভাপতির নির্দেশেই ঘড়ি ও সাইকেল নামে দুই তৃণমূল কর্মীকে ছয় মাসের জন্য তৃণমূল কংগ্রেস থেকে সাসপেন্ড করা হল। ছয় মাস পরে দলের নির্দেশ মেনে চললে তাঁদের দলে ফিরে আনা হবে। এছাড়াও শীতলকুচি ব্লকের সমস্ত কর্মীদের এধরনের কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে।”

তবে পাল্টা অভিযোগ তুলে তৃণমূল কংগ্রেসের সাসপেন্ড কর্মী সাইফুল ইসলাম অর্থাৎ সাইকেল বলেন, “আমাদের বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন। বিধানসভা ভোটের পর শীতলকুচিতে বিভিন্ন ভাবে যারা তোলাবাজি করেছে তাঁদের বহিষ্কার না করে দল আমাদের দুই ভাইকে রাজনৈতিক হেনস্থা করতে চক্রান্ত করে এই বহিষ্কার করল।”