Ad
কোচবিহার

আমাকে মেরেছে, আমাকে ধরেছে বলে পাবলিসিটি করে সংবাদের শিরোনামে ওঠার চেষ্টাঃ অশোক মণ্ডল হেনস্থা প্রসঙ্গে ফিরহাদ

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

দিনহাটা, ১৮ অক্টোবরঃ আগামী ৩০ অক্টোবর দিনহাটা বিধানসভার উপনির্বাচন। তা নিয়ে প্রচার চলছে জোর কদমে। আর সেই প্রচার করতে গিয়ে তৃণমূলের বাধার মুখে পড়তে হল দিনহাটা বিধানসভার উপনির্বাচনের বিজেপি প্রার্থী অশোক মণ্ডলকে। শুধু তাই নয়, তাঁকে ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখানোর পাশাপাশি ধাক্কাধাক্কিও করা হয় বলে বিজেপি প্রার্থী অভিযোগ করেছেন। তবে এই অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বলে দাবী তৃনমূল নেতৃত্বের।

এদিনের এই ঘটনা প্রসঙ্গে দিনহাটার সাহেবগঞ্জে প্রচারে এসে রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেন, “কোন রকম কোন হেনস্থা তৃনমূল করে না। বিজেপির হয়ে পাবলিসিটি করার কাজ তৃনমূল করে না। আমি গোটা দিনহাটা ঘুরে দেখছি কথাও কোন বিজেপির নাম-গন্ধ নেই। যেহেতু ওদের কোন অস্তিত্ব নেই, তাই আমাকে মেরেছে আমাকে ধরেছে বলে পাবলিসিটি করে সংবাদে ওঠার চেষ্টা করছে। আর এই সংবাদমাধ্যমে ওঠার ফলে বাংলার মানুষ কিছুদিনের জন্য জানবে যে এই টাকলু মাথা লোকটা বিজেপির দিনহাটা উপনির্বাচনের প্রার্থী।”

Ad

প্রসঙ্গত, আজ দিনহাটার বামনহাট গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার প্রচারে গিয়েছিলেন বিজেপি প্রার্থী অশোক মণ্ডল। তাঁর সাথে ছিলেন বিজেপি বিধায়ক মিহির গোস্বামী। তাঁরা বামনহাট বাজারে পৌঁছাতেই তৃনমূল কর্মীরা রীতিমত মিছিল করে এসে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। বিজেপি প্রার্থীকে ঘেরাও করে গো ব্যাক স্লোগান দিতে শুরু করে। বিজেপি প্রার্থী অশোক মণ্ডল ও বিধায়ক মিহির গোস্বামীকে ওই তৃণমূল কর্মীদের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ করতেও দেখা যায়।

৩০ অক্টোবর দিনহাটা বিধানসভা কেন্দ্রের উপ নির্বাচন। ২ নভেম্বর গণনা করা হবে। ইতিমধ্যেই রাজনৈতিক দল গুলো তাঁদের প্রার্থীদের মনোনয়ন পত্র জমা দিয়ে প্রচারে ঝাঁপিয়ে পড়েছে। তৃণমূল কংগ্রেসের প্রথম সারির নেতা তথা পরিবহন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম দিনহাটায় এসে একাধিক নির্বাচনী সভা করেছেন। কিন্তু প্রচারে গিয়ে প্রার্থীকে বাধা দেওয়ার ঘটনা এদিন প্রথম ঘটল। কাজেই এই ঘটনা নিয়ে নতুন করে রাজনৈতিক উত্তেজনা যাতে না ছড়ায় তার জন্য পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকেও পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন