Ad
কোচবিহার

কোচবিহারে ফের তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল প্রকাশ্যে, তৃণমূলের রাজ্য সহ সভাপতি রবীন্দ্রনাথ ঘোষের বিরুদ্ধে রাস্তায় নামার হুংকার দিনহাটা ২ নম্বর ব্লক তৃণমূলের

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

ইউবিজি NEWS, কোচবিহারঃ তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সহ-সভাপতি রবীন্দ্রনাথ ঘোষ দিনহাটায় আসছেন কিন্তু নেতৃত্বের সাথে কথা বলছেন না এমনই অভিযোগের ভিত্তিতে সাংবাদিক সম্মেলন করলেন দিনহাটা উদয়ন গুহর ঘনিষ্ঠ তথা ২ নম্বর ব্লকের সভাপতি বিষ্ণু কুমার সরকার, সহ-সভাপতি আব্দুল সাত্তার সহ একাধিক নেতা।

রাজ্য সহ-সভাপতি রবীন্দ্রনাথ ঘোষের ওপর ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ করে গোষ্ঠী কোন্দলকে দিনহাটা সহ কোচবিহার জেলা জুড়ে আবার প্রকাশ করলেন তারা। এই বিষয়টিকে কেন্দ্র করে কোচবিহার জেলায় গোষ্ঠী কোন্দল তীব্র আকার ধারণ করেছে বলে মনে করেন কোচবিহারের রাজনৈতিক মহল।

Ad

গত বিধানসভা নির্বাচনে কোচবিহারের ৯টি আসনের মধ্যে ৭টি আসনে জয়ী হয় বিরোধী দল বিজেপি। মাত্র ৫৭ ভোটে দিনহাটায় পরাজিত হন প্রাক্তন বিধায়ক উদয়ন গুহ। সামনেই হতে চলেছে উপনির্বাচন। এবার ঠিক উপ নির্বাচনের আগেই কে দাঁড়াবেন দিনহাটা থেকে তাতেও চলছে গুঞ্জন। এরইমধ্যে বিভিন্ন ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে রাজ্য সভাপতি রবি ঘোষের দিনহাটায় আসাকে মোটেই ভালো চোখে দেখছেন না উদয়ন ঘনিষ্ঠ তৃণমূল কংগ্রেস ২ নম্বর ব্লক সভাপতি, সহ-সভাপতি সহ অন্যান্য নেতৃত্ব।

এই বিষয়ে দিনহাটা দু নম্বর ব্লকের সভাপতি বিষ্ণু কুমার সরকার জানান, দিনহাটায় তিনি আসছেন অথচ আমাদের একবারও জানাচ্ছেন না। সামনে বিধানসভা নির্বাচন এতে নিচুতলার কর্মীদের মধ্যে অসন্তোষ বাড়বে। ১৯৯৮ সাল থেকে আমরা টিএমসির সাথে জড়িত আছি। আমরা উনাকে শ্রদ্ধা করি। কোন কিছু ভুল করলে উনি জানাতে পারেন। কিন্তু উনি দিনের পর দিন গত বিধানসভা নির্বাচনে যারা আমাদের প্রার্থীদের হারাবার জন্য উঠেপড়ে লেগেছিল তাদের নিয়ে মিটিং করছেন। আমরা দল বিরোধিতা পছন্দ করিনা। যারা দল বিরোধিতার চেষ্টা করে যাচ্ছেন তাদের বিরুদ্ধে রাস্তায় নামবো।

দিনহাটা ২ নম্বর ব্লকের সহ-সভাপতি আব্দুল সাত্তার বলেন, এখানে যারা উপদলীয় গঠনের চেষ্টা করছে তাদের আমরা ধিক্কার জানাই। নির্বাচনে যে নেতৃত্ব জেতার জন্য চেষ্টা করেছে আমরা তাদের নিয়েই চলছি। কিন্তু প্রার্থী জেতানোর ক্ষেত্রে যাদের সহযোগিতায় আমরা পাইনি তাদেরকে নিয়েই উনি চলছেন।

এ বিষয়ে দিনহাটার প্রাক্তন বিধায়ক উদয়ন গুহ বলেন, ওদের অভিজ্ঞতার কথা ওরা সাংবাদিকদের বলেছে সাংবাদিকদের না বলে পার্টিকে বলতে পারতো। আমার যা বলার সেটা রাজ্য দলকে জানিয়েছি আগামীতেও জানাবো। দলের ওপর ভরসা আছে। সাংবাদিকদের আমি কিছু বলতে চাই না।

এই বিষয়ে বিতর্কে উঠে আসা তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সহ-সভাপতি রবীন্দ্রনাথ ঘোষ বলেন, আমি একটা ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ের আমন্ত্রণ পেয়েছি। প্রতি বারই পেয়ে থাকি। তাই আমন্ত্রণ রক্ষা করতেই যাব। এবার একুশে জুলাই থাকায় ঈদের দিন যাওয়া হয়নি। আজ বিকেলে সেখানে আমন্ত্রণ রয়েছে এখনও যাওয়াই হলো না তাতেই বিরোধিতা। ব্যক্তিগত আমন্ত্রণ রক্ষা করতেও এমন নোংরা রাজনীতি হবে?

রবীন্দ্রনাথ ঘোষ অনুগামী তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সহ সভাপতি খোকন মিঁয়া বলেন, এরা কারা যারা সাংবাদিক বৈঠক করে প্রকাশ্যে রবীন্দ্রনাথ বাবুর মত বর্ষীয়ান নেতার বিরুদ্ধে কথা বলছেন। আমি মনে করি রাজ্য নেতৃত্ব এটা মেনে নেবে না।

বর্ষীয়ান নেতা রবি ঘোষের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে মুখ খুলে শাসকদলের গোষ্ঠী কোন্দল আবারো স্পষ্ট ভাবে ধরা পরল কোচবিহার জেলায়। গত বিধানসভা নির্বাচনে এই গোষ্ঠী কোন্দলের প্রভাবে শাসকদল মাত্র দুটি আসন তাদের দখলে রাখতে পেরেছিল কোচবিহার জেলায়। এমনটা চলতে থাকলে আগামীতে শাসক দলের রাজনৈতিক অস্তিত্ব কতটা টিকে থাকবে কোচবিহার জেলা জুড়ে এটাই প্রশ্ন কোচবিহারের রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের।

আরও পড়ুন