এ এক আজব পাঠশালা, গাছের নিচে চাকরি প্রার্থীদের নিয়ে ক্লাস করাচ্ছেন পুলিশ আধিকারিক চন্দন দাস

UBG NEWS, কোচবিহার, ২৫ জানুয়ারিঃ কোচবিহার জেলার সীমান্তবর্তী মহকুমা মেখলিগঞ্জ। সম্প্রতি মহকুমা পুলিশ আধিকারিকের দায়িত্ব নিয়ে পৌঁছেছেন চন্দন দাস। তারপর থেকেই বেশকিছু অভিনবত্ব দেখা যাচ্ছে মহকুমারের ক্ষেত্রে।

সোমবার জামালদহ তুলসী দেবী হাই স্কুলের মাঠে একটি গাছের নিচে ব্ল্যাকবোর্ড সহকারে দেখা গেল চন্দন বাবুকে। সামনে খোলা মাঠে বসে আছে কয়েক জন ছাত্র-ছাত্রী। তারা সকলেই চাকরিপ্রার্থী।

একসময় কোচবিহারে ডিএসপি ট্রাফিকের দায়িত্বে থাকা চন্দন বাবু নিয়মিত চাকরিপ্রার্থীদের ক্লাস নিতেন জেলা গ্রন্থাগারে। মহকুমাতে পৌঁছেও একই পদ্ধতি অবলম্বন করে যাচ্ছেন তিনি।

বিগত দিনের তথ্য ঘাটলে দেখা যায় তার মাধ্যমে প্রশিক্ষণ প্রাপ্তদের চাকরির হার ঊর্ধ্বমুখী। প্রান্তিক এবং সীমান্তবর্তী মহকুমা হওয়ার কারণে মেখলিগঞ্জ পিছিয়ে পড়েছিল, সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে কিছুটা সুবিধা দিতে পারার উদ্দেশ্য চন্দন বাবু বলে মনে করছে মেখলিগঞ্জের আপামর বাসিন্দারা।

সম্পূর্ণ নিখরচায় এই পঠন পাঠনের ব্যবস্থা করেছেন তিনি। নির্দিষ্ট ক্লাসরুম নেই, তাই কখনো গাছের নিচে কখনওবা খোলা মাঠে ক্লাস করবেন বলে মনস্থির করেছেন চন্দন বাবু।

চন্দন বাবু বলেন, তিনটে থানা পরিবেষ্টিত মেখলিগঞ্জ মহাকুমা যার বেশির ভাগ অংশটি ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত এলাকা, সেখানে উচ্চশিক্ষা হওয়া সত্ত্বেও অনেক ছাত্রছাত্রী সরকারি চাকরি থেকে বঞ্চিত। তারা সঠিক অভিভাবকত্ব পাচ্ছেন না। যে কারণে সরকারি চাকরির হার কমে এসেছে। তাই মেখলিগঞ্জ মহাকুমার দুই জায়গায় নিখরচায় চাকরিপ্রার্থীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছেন তিনি। সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন বেশকিছু স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এবং ক্লাব।

তিনি আশাবাদী কোচবিহার জেলা পুলিশের এই সহযোগিতায় অদূর ভবিষ্যতে এলাকার উচ্চশিক্ষিত ছাত্র-ছাত্রীরা সরকারি চাকরির সুযোগ পাবে। একই সাথে কিভাবে ইন্টারভিউ ফেস করতে হয় সেই বিষয়েও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলেও জানান চন্দন বাবু।