সারা বছর ধরে দলের বুথ কমিটি গুলো কোন কাজ করে না, নাটাবাড়ি বিধানসভার বিভিন্ন অঞ্চল কমিটির নেতৃত্বদের নিয়ে বৈঠকে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ

কোচবিহার, ৪ মার্চঃ সারা বছর ধরে দলের বুথ কমিটি গুলো কোন কাজ করে না বলে নিজেই অভিযোগ করলেন তৃণমূল কংগ্রেসের বর্ষীয়ান নেতা তথা উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ।

আজ কোচবিহারে নিজের বাসভবনে নাটাবাড়ি বিধানসভার বিভিন্ন অঞ্চল কমিটির নেতৃত্বদের নিয়ে একটি আলোচনা সভা করেন মন্ত্রী। সেখানে অঞ্চল নেতৃত্বদের উদ্দেশ্যে তাঁকে বলতে শোনা যায়, “শুধুমাত্র পঞ্চায়েত নির্বাচনের সময় পছন্দের কাউকে প্রার্থী করার জন্য বালিশের নীচ থেকে বুথ কমিটি লিস্ট বের করা হয় রেজুলেশনের জন্য। তাছাড়া সারাবছর ধরে বুথ কমিটি গুলো কোন কাজ করে না। মানুষের পাশে গিয়ে দাঁড়ায় না।”

পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নে অবশ্য কিছুটা সামলে নিয়ে মন্ত্রী বলেন, “আসলে করোনা মহামারির জন্য মানুষের সাথে মানুষের একটা দূরত্ব তৈরি হয়েছিল। তার জন্য কিছু বুথে কর্মীরা সক্রিয় নেই। সেই বুথ গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে। সেখানে স্পেশাল ড্রাইভ দেওয়া হবে।”

এদিকে মন্ত্রীর ওই বক্তব্য নিয়ে খোঁচা দিতে ছাড়েন নি কোচবিহারের বিজেপি নেতৃত্ব। বিজেপির কোচবিহার জেলা সহ সভাপতি প্রণব পাল বলেন, “ কি নিদারুণ পরিহাস। যে রাজনৈতিক দল রাজ্যে দশ বছর ধরে ক্ষমতায় আছে। আজ তাঁরা বুথে কর্মী খুঁজে পাচ্ছেন না। আর মন্ত্রী সেটা নিজের মুখে স্বীকার করছেন। আসলে আমরা যে বলে আসছিলাম তৃণমূল কাটমানি খাওয়া আর চাল চুরি করা ছাড়া সাধারণ মানুষের জন্য কিছু করে নি। আজ মন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে সেটাই তুলে ধরলেন।”

গত লোকসভা নির্বাচনের নিরিখে নাটাবাড়ি বিধানসভা কেন্দ্রে তৃনমূল কংগ্রেস বিজেপির থেকে কয়েক হাজার ভোটে পিছিয়ে পড়েছিল। এরপর ওই এলাকায় গিয়ে বেশ কয়েকবার বিজেপির বিক্ষোভের মুখেও পড়তে হয়েছে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রীকে। কিন্তু লকডাউনের সময় দীর্ঘ সময় ধরে টানা নিজের বিধানসভা এলাকার অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন মন্ত্রী।

এলাকায় এলাকায় গিয়ে চাল ডাল সহ বিভিন্ন ধরনের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। এতে পরিস্থিতি ক্রমশ ঘুরতে শুরু করে। কিন্তু বহু বুথেই যে বিজেপি এখনও নিজেদের সংগঠন মজবুত করে ধরে রেখেছে, ভোটের প্রচারে নেমেই মন্ত্রী তা বুঝতে পেরে তড়িঘড়ি কর্মীদের নিয়ে আলোচনায় বসেছেন বলে রাজনৈতিক মহল মনে করছে।