Ad
কোচবিহার

কোচবিহারে পাঁচ মাসের শিশু সন্তানের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা, চিকিৎসকের উপর হামলা ও চেম্বারে ভাঙচুর

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

দিনহাটা, ২৯ জুনঃ কোচবিহার জেলার দিনহাটা মহকুমায় শিশু মৃত্যুকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়াল শহরে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার দুপরে দিনহাটা মহকুমা হাসপাতাল সংলগ্ন এলাকায় থাকা শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ বিপ্লব ব্যানার্জির প্রাইভেট চেম্বারে। অভিযোগ, ওই ডাক্তারবাবুর প্রাইভেট চেম্বারে ঢুকে ১০/১২ জন অতর্কিতে হামলা চালায়। ওই ঘটনার জেরে ডাক্তারের চেম্বারে আসা অন্যান্য লোকজন কিছু বুঝতে না পেরে আতঙ্কিত হয়ে ছোটাছুটি শুরু করেন। ওই ঘটনায় চোখের পলকে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় ওই চেম্বারের।

অভিযোগ, ওই শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের জামার কালার ধরে তাঁকে মারধর করা হয়। সেখানে থাকা আসবাবপত্র ভেঙ্গে দেওয়া হয়। ঘটনার খবর পেয়ে ছুটে যায় দিনহাটা থানার পুলিস। এরপর সেখান থেকে ২ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে গেলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

Ad

জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার দুপুরে দিনহাটা ১ নং ব্লকের খারিজা গিতালদহ গ্রামের বাসিন্দা ৫ মাস বয়সের রিয়া বর্মনকে দিনহাটা হাসপাতালে শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ে ভর্তি করা হয়। কিন্তু হাসপাতালে ভর্তির কিছুক্ষণের মধ্যেই মৃত্যু হয় ওই শিশুটির। এরপরেই গণ্ডগোল শুরু হয়।

মৃত শিশুটির পরিবারের অভিযোগ, শনিবার রিয়া বর্মনকে শিশু বিশেষজ্ঞ বিপ্লব ব্যানার্জিকে প্রাইভেট চেম্বারে নিয়ে আসা হয়। চিকিৎসক দেখে প্রয়োজনীয় ঔসুধ লিখে দেন চিকিৎসক। এরপর আজ সকাল থেকে ওই শিশুটি আরও অসুস্থ হওয়ায় দুপর সাড়ে ১২টা নাগাদ দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে পরিবারের লোকজন নিয়ে এসে তাঁকে ভর্তি করান। ভর্তির কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই মৃত্যু হয় শিশুটির। শিশুটি অসুস্থ থাকলে কেন চিকিৎসক শনিবার তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করতে বললেন না কেন।

এরপরেই হাসপাতালের পাশে থাকা শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ বিপ্লব ব্যানার্জির প্রাইভেট চেম্বারে গিয়ে লাঠি সোটা নিয়ে চড়াও হয়ে চিকিৎসকে মারধর করে। এবং সেখানে ভাঙচুর করে মৃতের পরিবারের লোকজন বলে অভিযোগ। ওই ঘটনার খবর পেয়ে পুলিস গিয়ে দুই জনকে আটক করে।

এদিন চিকিৎসক বিপ্লব ব্যানার্জি বলেন, আজকে একটি শিশুর হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে। তাদের অভিযোগ আমি ওই শিশুটিকে দেখা স্বত্বেও কেন এমন হল। কবে দেখিয়েছে তারা তার কোন প্রেসক্রিপশননি দেখাতে পারে নি। অতর্কিতে তারা লাঠিসোটা নিয়ে এসে চেম্বারে ঢুকে আমার কলার ধরে মারধর করে। গায়ে আঁচর লেগেছে। জামার বোতাম ছিঁড়ে গেছে। টেবিল চেয়ার উল্টে দিয়েছে। থানায় লিখিত অভিযোগ করা হবে।

আরও পড়ুন