কোচবিহার জেলার প্রান্তিক আদিবাসী গ্রামে প্রাথমিক ছাত্র-ছাত্রীদের পাশে শিক্ষকরা

UBG NEWS, কোচবিহার, ১৯ সেপ্টেম্বরঃ কোচবিহার ২ নম্বর ব্লকের জঙ্গলে ঘেরা গ্রাম পাচুনির পার। পাতলাখাওয়া বনাঞ্চলের ভেতরে আদিবাসী সম্প্রদায়ের বাস। ওরাও মুন্ডা আদিবাসী শ্রেণীর মানুষ তাদের বাচ্চাদের নিয়ে উজ্জল ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখেন। স্বপ্ন দেখেন এই আদিবাসী গ্রামের গণ্ডি পেরিয়ে তাদের বাচ্চারা সমাজের উচ্চ স্তরে প্রতিষ্ঠিত হোক। আর তার জন্যই চাই শিক্ষা। সঠিক শিক্ষাই মানুষকে মানুষ হিসেবে তৈরি করতে পারে।

প্রায় সাত মাস স্কুল বন্ধ। এই অতিমারির আবহে একদিকে যেখানে দরিদ্র অসহায় এই আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষেরা তাদের পরিবারের প্রতি নজর পর্যন্ত দিতে পারছেন না, ঠিক তার উলটোদিকে সেই পরিবারের বাচ্চাদের হাতে খাতাকলম এবং হেলথ ড্রিঙ্ক তুলে দিয়ে তাদের স্বাস্থ্য সম্পর্কে খোঁজ-খবর নিলেন এলাকার প্রাথমিক শিক্ষকরা।

তাদের সাথে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান কল্যাণী পোদ্দার। তার পাঠশালা প্রকল্প নিয়ে এদিনও তিনি গ্রামের বাচ্চাদের পুজোর ছুটির পড়াশোনা দেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদ চেয়ারপারসন। তারা কতটা পড়াশোনা করছে সেই বিষয়ে খোঁজ-খবর নেন। এলাকার বেশিরভাগ বাচ্চাই ভালোমতো বাংলা জানেনা। তাই এলাকার এক আদিবাসী মহিলার সহযোগিতায় চলছে বাচ্চাদের পড়াশোনা।

স্থানীয় বাসিন্দা প্রমিলা কুজুর বলেন, “এর আগে কোনদিন এইভাবে শিক্ষাস্তরে কোনো প্রশাসনিক আধিকারিক আমাদের এলাকায় এসে পৌঁছয় নি। গ্রামের ছাত্রছাত্রীরা পড়াশোনা করতে ইচ্ছুক, কিন্তু পরিবেশ পরিস্থিতি বেশ কিছু ক্ষেত্রে অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়। দিদিমণি নিজে এসে বাচ্চাদের সাথে কথা বলেছেন, এটাই তাদের সবথেকে বেশি উৎসাহ প্রদান করবে। একই সাথে দিদিমণি বাচ্চাদের খাতা কলম দেওয়ায় উৎসাহিত হবে ক্ষুদে পড়ুয়ারা”।