কোচবিহার

ময়নাগুড়ি ট্রেন দুর্ঘটনায় মৃত ৯ জনের মধ্যে কোচবিহারের ৫ বাসিন্দার হদিস, জেলা জুড়ে শোকের ছায়া

১৪ জানুয়ারিঃ ময়নাগুড়ি ট্রেন দুর্ঘটনাইয় মৃত ৯ জনের মধ্যে কোচবিহারের ৫ বাসিন্দার হদিস পাওয়া গিয়েছে। ওই ৫ জন হলেন কোচবিহার ১ নম্বর ব্লকের চান্দামারি এলাকার চিরঞ্জিত বর্মণ(২৩), ফলিমারি দেওয়ানবস এলাকার সুভাস রায়(৩৮), কালাপানির বাসিন্দা সম্রাট কার্জি, লতাপাতা গ্রাম পঞ্চায়েত রঞ্জিত বর্মণ(৪২), পাতলা খাওয়া পুন্ডীবারির বাসিন্দা মঙ্গল ওঁরাও(৪০)। এরমধ্যে নবাব আলির দেহ ইতিমধ্যেই তাঁদের পরিবারের হাতে তুলে দিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ। অন্য দুজনের দেহ নিয়ে আসার জন্য তাঁদের আত্মীয়স্বজনরা জলপাইগুড়িতে পৌঁছে গিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।

প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে, ওই তিনজনই রাজস্থানের জয়পুরে শ্রমিকের জকাজ করতেন। করোনা মহামারি ফের বাড়তে শুরু করায় তাঁরা বাড়িতে ফিরে আসছিলেন। কিন্তু বাড়ির কাছাকাছি এসেও তাঁদের আর বাড়ি ফেরা হল না। তাঁদের ওই মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর খবর এলাকায় পৌছাতেই শোকের ছায়া নেমে এসেছে। কোচবিহার ১ নম্বর ব্লকের সাতমাইল এলাকার বাসিন্দা তথা তৃনমূল শ্রমিক ও মজদুর সংগঠনের জেলা সহ সভাপতি অমল রায় বলেন, “আমরা ঘটনাস্থলে এসেছি। কোচবিহার ১ নম্বর ব্লকের মৃত দুই জনের পরিবারের লোকজনের সাথে কথা হয়েছে। সকলেই শোকস্তব্ধ। দেহ নিয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।”

গতকাল বিকেল ৫ টা নাগাদ গৌহাটিগামী বিকানির এক্সপ্রেস ময়নাগুড়ির দোমহনি স্টেশনের কাছে ভয়াবহ দুর্ঘটনায় পড়ে। ওই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন ৩৬ জন। আহতদের মধ্যে ৭ জনকে ময়নাগুড়ি হাসপাতালে ২৩ জনকে জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে এবং ৬ জনকে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা করা হচ্ছে।

এছাড়াও অন্যান্য যাত্রীদের পৌছাতে রাজ্য সরকার এবং রেল কর্তৃপক্ষ তৎপরতার সাথে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। ইতিমধ্যেই ট্রেন দুর্ঘটনার কারণ জানতে তদন্ত শুরু হয়েছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব সহ রেল উচ্চ পদস্থ আধিকারিকরা। ওই পথে রেল চলাচল স্বাভাবিক করতেও তৎপরতার সাথে কাজ শুরু হয়েছে বলে রেল দফতর সুতরে জানা গিয়েছে।

Ad

[ লেটেস্ট খবর এবং আপডেট জানার জন্য ফলো করুন ইউবিজি নিউজ ফেসবুক পেজ । ব্রেকিং নিউজ এবং ডেইলি খবরের আপডেটে পেতে যুক্ত হোন হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে  ]