Ad
কোচবিহার

কোভিড ওয়ার্ডে সাফাই কর্মীদের পর ১০ মাস থেকে বেতন না পেয়ে এমজেএন মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের মাতৃমার পরিষেবা বন্ধ করে দিলো নিশ্চয় যানের চলকেরা, বিপাকে রোগীর পরিবার

এই বিজ্ঞাপনের পরে আরও খবর রয়েছে

কোচবিহার, ১৫ সেপ্টেম্বরঃ দীর্ঘ ১০ মাস ধরে বিল না মেটানোয় অনির্দিষ্ট কালের জন্য নিশ্চয় যান পরিষেবা বন্ধ করে দিল গাড়ির মালিক পক্ষ।

মঙ্গলবার থেকে ওই অনির্দিষ্ট কালের জন্য নিশ্চয় যান পরিষেবা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ব্যাপক সমস্যায় পড়েছেন হাসপাতাল থেকে ছুটি পাওয়া প্রসূতি ও তাঁদের শিশুরা। কোচবিহার মেডিক্যাল কলেজের ‘মাতৃমা’র সামনে নিশ্চয় যানের জন্য কার্যত হত্যে দিয়ে পড়ে রয়েছেন তাঁরা। কেউ কেউ নিরুপায় হয়ে বাড়ির লোকজনকে ফোন করে ভাড়ার গাড়ির ব্যবস্থা করার জন্য আবেদন করেছেন। এই দৃশ্য শুধু কোচবিহার মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের নয়, জেলার মহকুমা হাসপাতাল গুলোতেও একই সমস্যা তৈরি হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

Ad

দীর্ঘ দিন থেকে প্রসূতিদের বিনামূল্যে হাসপাতালে যাতায়াতের জন্য নিশ্চয়যান প্রকল্প চালু রয়েছে। কোচবিহার জেলায় ওই প্রকল্পে ৯৬ টি ছোট গাড়ি রয়েছে। ভাড়ার মাধ্যমে ওই গাড়ি গুলো মালিকের কাছ থেকে নিয়ে জেলা স্বাস্থ্য দফতর নিশ্চয় যান প্রকল্পে ব্যবহার করে থাকে। কিন্তু বিগত ১০ মাস ধরে সেই গাড়ি গুলোর ভাড়া মেটানো হচ্ছে না বলে অভিযোগ।

গাড়ির মালিক সংগঠনের পক্ষে বারবার জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের সাথে দেখা করেও সঠিক ভাবে কোন আশ্বাস পাচ্ছেন বা বলে শেষ পর্যন্ত অনির্দিষ্ট কালের জন্য পরিষেবা বন্ধ রাখার সিধান্ত নিয়েছে মালিক সংগঠন। সংগঠনের কোচবিহার মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের দায়িত্বে থাকা রমজান আলী বলেন, “জেলায় সব মিলিয়ে দেড় কোটি টাকার উপড়ে বকেয়া রয়েছে। শুধু মাত্র পরিষেবা বন্ধ হয়ে গেলে সাধারণ মানুষ বিড়ম্বনায় পরবে বলে আমরা এতদিন নিজের পকেটের টাকা খরচ করে এই প্রকল্প সচল রেখেছি। কিন্তু আর আমাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না বলে পরিষেবা বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছি।”

অন্যদিকে কোচবিহার মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের ‘মাতৃমা’র সামনে বসে থাকা এক প্রসূতির আত্মীয় নটকোবাড়ি এলাকার বাসিন্দা মর্জিনা বিবি বলেন, “ আমার রোগীর ছুটি হয়েছে অনেক আগেই। কিছু পরীক্ষা নিরীক্ষার পর গাড়ির খোঁজ নিতে এসে শুনে বন্ধ হয়ে গেছে। পরে বাড়ির লোকজনকে ফোন করেছি। তাঁরা ভাড়ার গাড়ি নিয়ে আসছে।” তবে এই সমস্যা মেটাতে কোচবিহার জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক কি ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন, তা এখনও স্পষ্ট নয়। তাঁদের পক্ষ থেকে এব্যাপারে এখনও পর্যন্ত কোন প্রতিক্রিয়ায়ও পাওয়া যায় নি।

কোচবিহার এম জে এন মেডিকেল কলেজের নিশ্চয় যানের চালক রঞ্জন আলী বলেন, প্রায় ১০ মাস ধরে আমাদের বেতন দেওয়া হচ্ছেনা। ঋণ ধার করে আমরা মানুষের পরিষেবা দিয়ে আস ছিলাম। কিন্তু আমরা যখনি মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের কাছে যাই তখনই তিনি বলেন দেখছি। গত কাল ও যখন আমরা ওনার সাথে দেখা করি উনি বলেন আরো কিছুদিন সময় লাগবে। তাই বাধ্য হয়ে আমরা আমাদের পরিষেবা বন্ধ করে দিলাম। বর্তমানে কোচবিহার মাতৃমা তে ৭ টি নিশ্চয় যান রয়েছে। গোটা জেলায় মোট ৯৬ টি গাড়ি চলে। আমরা আজ থেকে ৯৬ টি গাড়ির পরিষেবা বন্ধ করে দিলাম। যতক্ষন না পর্যন্ত আমাদের বকেয়া টাকা না দেওয়া হচ্চে।

আরও পড়ুন