মহিলা তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা সভানেত্রীর উপর দুষ্কৃতী হামলা

কোচবিহার: মহিলা তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা সভানেত্রী সুচিস্মিতা দত্ত শর্মা উপর হামলা চালানোর অভিযোগ উঠল বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে পানিশালা গ্রাম পঞ্চায়েতের পানিগ্রাম এলাকায়। জানা গেছে এদিন সকালে ওই এলাকায় দলীয় কাজে গিয়েছিলেন সুচিস্মিতা দেবী। সেই সময় এলাকার বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতী বাহিনী তার ওপর চড়াও হয়।

মেরে তার মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়। এই ঘটনার খবর সামনে আসতেই গোটা জেলা জুড়ে ক্ষোভে ফেটে পড়েন তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরা। এই ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগরে দিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা সভাপতি পার্থ প্রতিম রায়।

তিনি এই ঘটনার নিন্দা জানানোর পাশাপাশি তিনি লেখেন, “বিজেপি সভানেত্রী মালতী দেবীর কাছে প্রশ্ন আপনাদের পোষ্য গুন্ডারা কি মানবাধিকার কমিশনের টাওয়ারে নেই। একজন মহিলা হয়ে আপনি নিজেই একটা বিবৃতি দিন হ্যাঁ বিজেপির গুন্ডাবাহিনীই দ্বারাই সুচিস্মিতা আক্রান্ত। আর বাকিটা প্রশাসন দেখবে।” তৃণমূল কংগ্রেসের একের পর এক শীর্ষ নেতৃত্বের ওপর হামলার ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই রাজনৈতিক মহলে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে।

এদিকে আহত অবস্থায় তৃণমূল কংগ্রেসের মহিলা সংগঠনের জেলা সভানেত্রী সুচিস্মিতা দত্ত শর্মা কে উদ্ধার করে কোচবিহার মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে । যদিও এই ঘটনা প্রসঙ্গে এখনো পর্যন্ত বিজেপি নেতৃত্বের কোন রকম প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। ভোট পরবর্তী সময়ে দাঁড়িয়ে বারংবার রাজনৈতিক বিষয় উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে কোচবিহার জেলার বিভিন্ন অংশ।

কখনো তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী সমর্থকদের ওপর হামলার অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে এবার পাল্টা বিজেপির অভিযোগ তৃণমূলের দিকে। গত ৬ ই মে দিনহাটায় তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন বিধায়ক উদয়ন গুহর উপর হামলার ঘটনা ঘটে। এরপর থেকেই একাধিক জায়গায় রাজনৈতিক হিংসা ছবি সামনে আসে। জেলাজুড়ে রাজনৈতিক পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে কোচবিহারে আসেন মানবাধিকার কমিশনের প্রতিনিধিদল।

তারা ঘুরে গিয়ে হাইকোর্টেতে রিপোর্ট পেশ করেন তারপরে দেখা যায় দিনহাটা তৃণমূল নেতা উদয়ন গুহ কে কুখ্যাত দুষ্কৃতী আখ্যা দেওয়া হয়েছে। দিন কয়েক আগে তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি পার্থ প্রতিম রায় বাড়িতে ঢুকে গুলি চালানোর অভিযোগ দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে বারবার এরকম সন্ত্রাস জেলা জুড়ে চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে।